একজন শ্রেষ্ঠ আকিমেনিড সম্রাটঃ ডেরিয়াস দ্য গ্রেট, Stay Curioussis

খ্রিস্টীয় ১৬ শতক। ইরানের বিস্টোন বা বেহিশতুন শহরের কাছাকাছি প্রায় ১০৫ মিটার উচ্চতায় পাহাড়ের গায়ে খোদাই করা এক অদ্ভূত শিলালিপি দেখতে পেলেন ইংরেজ কূটনীতিবিদ শেরলে রবার্ট। প্রথম দিকে মনে করা হয়েছিলো, শিলালিপিটি যীশুখ্রিস্ট ও তার ১২ জন শিষ্যের প্রতিচ্ছবি। কিন্তু ভুল ভাঙলো, যখন তিন বছর কঠোর পরিশ্রমের পর ব্রিটিশ অফিসার রাউলিনসন হেনরি ১৯ শতকে এর পাঠোদ্ধার করলেন। রাউলিনসন হেনরির সেই পাঠোদ্ধার ইতিহাসে যোগ করলো এক আদিম বার্তার গল্প, যে বার্তার মাধ্যমে সমগ্র বিশ্ববাসীর সামনে তুলে ধরা হয়েছিলো পৃথিবীর সর্বকালের সবচেয়ে বড় সাম্রাজ্যের একজন অন্যতম শ্রেষ্ঠ রাজার ক্ষমতা ও শক্তির দলিল। স্পষ্টভাবে ঘোষণা দেয়া হয়েছিলো, “আমি ডেরিয়াস, একজন মহান রাজা, রাজাদের রাজা, পারস্যের রাজা, প্রদেশগুলোর রাজা, হিস্টাসপিসের ছেলে, আরসামিসের নাতি, একজন আকিমেনিড”।

একজন শ্রেষ্ঠ আকিমেনিড সম্রাটঃ ডেরিয়াস দ্য গ্রেট, Stay Curioussis

সমাধির সম্মুখভাগের উপরের বাম কোণে ডেরিয়াসের প্রথম শিলালিপি।

পৃথিবীর সবচেয়ে বড় আকিমেনিড সাম্রাজ্যের প্রতিষ্ঠাতা হলেন দ্বিতীয় সাইরাস তথা সাইরাস দ্য গ্রেট। তার দাদা প্রথম সাইরাসের দাদা আকিমেনিসের নাম অনুসারেই মূলত আকিমেনিড বংশের নামকরণ করেন রাজাদের রাজা সাইরাস। আসলে আকিমেনিসের ছেলে টাইস্পিসের দুই ছেলের মাধ্যমেই আকিমেনিড বংশের দুটি মূল ধারার উৎপত্তি হয়। প্রথম সাইরাসের ছেলে ক্যাম্বাইসেসের ঘরে জন্ম নেয়া দ্বিতীয় সাইরাসই সর্বপ্রথম বিশাল এই সাম্রাজ্যের গোড়াপত্তন করেন। আর টাইস্পিসের অপর ছেলে আরিয়ারামনেস থেকে শুরু হয় আকিমেনিড বংশের আরেকটি ধারা। তার ছেলে আরসামিস, আরসামিসের ছেলে হিস্টাসপিস এবং হিস্টাসপিসের ছেলেই হলেন বিশাল আকিমেনিড সাম্রাজ্যের দ্বিতীয় প্রধান সম্রাট প্রথম ডেরিয়াস বা ডেরিয়াস দ্য গ্রেট। অবশ্য অনেক বিশেষজ্ঞ ধারণা করেন, ডেরিয়াস উদ্দেশ্যপ্রণোদিতভাবে নিজেকে আকিমেনিড বংশোদ্ভূত বলে জোর প্রচার চালিয়েছেন, যদিও এর সত্যতা সম্পর্কে জানা যায় নি।

ডেরিয়াস মূলত আকিমেনিড সাম্রাজ্যের তৃতীয় (মতান্তরে চতুর্থ) সম্রাট। খ্রিস্টপূর্ব ৫২২ সালে সিংহাসনে বসেন তিনি। সাইরাস দ্য গ্রেটের সময়ে আকিমেনিড সাম্রাজ্য একটি বিশাল সীমানা লাভ করে সত্যি, কিন্তু এটি সর্বোচ্চ বিস্তার লাভ করে ডেরিয়াসের আমলে। ডেরিয়াসের সময়ে আকিমেনিড সাম্রাজ্য মধ্য এশিয়াসহ উত্তরে বলকান দ্বীপ (রোমানিয়া, বুলগেরিয়া, ইউক্রেন), পশ্চিমে লিবিয়া, মিশর এবং পূর্বে ভারতবর্ষ পর্যন্ত বিস্তৃত হয়েছিলো। মেসোপটেমীয় সভ্যতা, মিশরীয় সভ্যতা ও সিন্ধু সভ্যতা –মানবজাতির ইতিহাসের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ তিনটি সভ্যতা রূপ পেয়েছিলো ডেরিয়াসের সময়েই। সিংহাসনে বসে তিনি আর্মাইক ভাষাকে দাপ্তরিক ভাষা হিসেবে ঘোষণা করেন এবং নিজের নামে মুদ্রা চালু করেন। ডেরিয়াস পরিমাপের বেশ কিছু এককও নির্ধারণ করেছিলেন।

একজন শ্রেষ্ঠ আকিমেনিড সম্রাটঃ ডেরিয়াস দ্য গ্রেট, Stay Curioussis

দারিয়াস আই

রাজ্য পরিচালনায় ডেরিয়াস সাইরাস দ্য গ্রেটের অনেক নীতি অনুসরণ করেছিলেন। বিশাল সাম্রাজ্য পরিচালনায় বিশৃঙ্খলার আশঙ্কার জন্য সাইরাসের মতো ডেরিয়াসও প্রদেশভিত্তিক শাসনব্যবস্থা গড়ে তুলেছিলেন। প্রত্যেক প্রদেশের গভর্নরকে বলা হতো ‘সত্রপ’। সত্রপরা সম্রাটকে কর দিয়ে নিজ নিজ অঞ্চলের তত্ত্বাবধানে কাজ করে যেতেন। আর তাদের উপর নজর রাখার জন্য নিযুক্ত থাকতেন একজন কেন্দ্রীয় রাজকীয় সচিব, যাকে বলা হতো ‘সম্রাটের চোখ’। কেন্দ্রীয় রাজকীয় সচিব নিযুক্তকরণের মাধ্যমেই সর্বপ্রথম গোয়েন্দা সেবা চালু করে আকিমেনিড সাম্রাজ্য। প্রত্যেক অঞ্চলের সত্রপরা কেন্দ্রীয় রাজকীয় সচিবের কাছে জবাবদিহিতার জন্য বাধ্য থাকতেন। সাইরাস দ্য গ্রেটের আমলে আকিমেনিড সাম্রাজ্য ২৬টি এবং ডেরিয়াস দ্য গ্রেটের সময় ৩৬টি প্রদেশে বিভক্ত হয়।

আকিমেনিড সাম্রাজ্যের উন্নয়নে ডেরিয়াসের অবদানের কথা বলে শেষ করা যাবে না। তিনি ছিলেন একজন দক্ষ যোদ্ধা এবং বিচক্ষণ শাসক। পুরো পৃথিবীর ৪০ ভাগ জনগোষ্ঠীকে নিজের সাম্রাজ্যের অধীনে শাসন করে গেছেন তিনি সফলভাবে। সুয়েজ খালের প্রাচীন রূপ ‘ডেরিয়াস ক্যানাল’ লোহিত সাগর ও ভারত সাগরের সাথে মেডিটেরিনিয়ান সাগরকে যুক্ত করেছিলো। বসফরাস প্রণালীতে প্রথম আন্তঃমহাদেশীয় সেতু নির্মাণ করেন ডেরিয়াস, যেটি এশিয়া ও ইউরোপকে সংযুক্ত করে। ২৫০০ মাইল দীর্ঘ প্রথম আন্তঃমহাদেশীয় বাণিজ্যপথ ‘রয়্যাল রোড’ গড়ে উঠেছিলো ডেরিয়াসের হাত ধরেই। এই রয়্যাল রোডই পরবর্তীকালের গুরুত্বপূর্ণ বাণিজ্যপথ ‘সিল্ক রুট’ এর প্রধান সংযোগ।

ইতিহাসে সর্বপ্রথম কুরিয়ার সার্ভিস প্রণয়ন করেন ডেরিয়াস দ্য গ্রেট। গ্রীক পন্ডিত হেরেডোটাসের বর্ণনা থেকে জানা যায়, পারস্যের কুরিয়ার সার্ভিসের গতি সকল দ্রুততাকে হার মানাতো। মহাসাগরীয় অনুসন্ধানের চিন্তা ডেরিয়াসের মনেই প্রথমবার উদয় হয়, যা তাকে ভারতবর্ষ পর্যন্ত নিয়ে গিয়েছিলো। সাইরাস দ্য গ্রেটের মতো ডেরিয়াসের আমলেও দাস প্রথাকে প্রশ্রয় দেয়া হয় নি, প্রত্যেক কর্মীকে দেয়া হতো উপযুক্ত পারিশ্রমিক। ডেরিয়াসের সময়ে প্রণীত হয় প্রথম আন্তর্জাতিক মুদ্রা।

একজন শ্রেষ্ঠ আকিমেনিড সম্রাটঃ ডেরিয়াস দ্য গ্রেট, Stay Curioussis

ডেরিয়াসের আমলের মুদ্রা

সে সময়ে পৃথিবীর সবচেয়ে সমৃদ্ধশালী অঞ্চল ভারতবর্ষ ডেরিয়াসের প্রচেষ্টায় আকিমেনিড সাম্রাজ্যের অন্তর্ভুক্ত হয়েছিলো। তিনি নিজ সাম্রাজ্যসীমার বাইরের অঞ্চলগুলো নিয়ে সবসময় ভাবতেন। কিছুটা কৌতুহল, কিছুটা জয়ের নেশা থেকেই গ্রীক লেখক স্কাইলাক্সকে তিনি পাঠিয়েছিলেন সিন্ধু নদের অপর পাশের এলাকা অনুসন্ধানে। স্কাইলাক্সের দেয়া তথ্যই ভারতবর্ষের প্রতি আকর্ষিত করেছিলো ডেরিয়াসকে, যার ফলাফল পৃথিবীর সবচেয়ে বড় সাম্রাজ্যে ভারতবর্ষের অন্তর্ভুক্তি। প্রাচীন ইতিহাসের নজিরবিহীন ‘প্যাক্স পার্সিকা’ বা ‘পার্সিয়ান শান্তি’ অব্যাহত রাখার মাধ্যমে ব্যবিলন, মিশর, আয়োনিয়া ও গ্রীসসহ অনেকগুলো বিদ্রোহ সফলভাবে দমন করতে সক্ষম হয়েছিলেন ডেরিয়াস। বিশ্বের প্রথম ব্যাংকিং সেবা প্রতিষ্ঠা করেন বিচক্ষণ ডেরিয়াস দ্য গ্রেট।

ডেরিয়াস সত্রপদের কাছ থেকে কর আদায়ের জন্য যেমন সুশৃঙ্খল পদ্ধতি প্রণয়ন করেছিলেন, তা বর্তমানের শাসকদের জন্য একটি শিক্ষণীয় বিষয়। তার আমলে অসাম্প্রদায়িকতাও ছিলো অবাক করবার মতো। দ্বিতীয় চার্চ প্রতিষ্ঠার ক্ষেত্রেও ডেরিয়াসের ভূমিকা রয়েছে। আকিমেনিড সাম্রাজ্যে ‘বাগান’ নিয়ে তো আর নতুন করে বলার কিছু নেই। এটা সবাই জানে যে, পার্সিয়ানদের কাছে বাগান শুধুমাত্র সৌন্দর্য বর্ধনের বিষয় নয়, বরং এটি তাদের কাছে একটি গুরুত্বপূর্ণ রাজনৈতিক হাতিয়ার। বাগান তৈরীর মাধ্যমে আকিমেনিড শাসকরা তাদের সৃষ্টি করার ক্ষমতাকে দেখাতে চান, জীবিত প্রাণীদের নিরাপদ আবাসস্থল এই বাগান গড়ে তোলার মাধ্যমে তারা পৃথিবীর মধ্যে স্বর্গ খুঁজে পেতেন। তাই বাগানকে বলা হতো ‘প্যারাডাইসিয়া’।

একজন শ্রেষ্ঠ আকিমেনিড সম্রাটঃ ডেরিয়াস দ্য গ্রেট, Stay Curioussis

ডেরিয়াসর সেনাবাহিনী

ডেরিয়াস দ্য গ্রেটের আমলে আকিমেনিড সাম্রাজ্যে প্রতিষ্ঠিত সবচেয়ে উল্লেখযোগ্য ঘটনা হলো নারীর অধিকার প্রতিষ্ঠা। সে সময় নারী কর্মীকে পুরুষ কর্মীর সমান পারিশ্রমিক দেয়া হতো এবং গর্ভবতী ও প্রসূতি মায়েদের জন্য ছিলো পারিশ্রমিকসহ মাতৃত্বকালীন ছুটির ব্যবস্থা। সেই প্রাচীন সময়ে এমন দূরদর্শিতা সত্যিই অবাক করার মতো ব্যাপার। তা ছাড়াও মাল্টিকালচারালিজম তো সাইরাসের সময় থেকেই চলে আসছে আকিমেনিড সাম্রাজ্যে।

ডেরিয়াসের কীর্তিগুলোর মধ্যে সবচেয়ে বিস্ময় জাগানিয়া হচ্ছে চোখ ধাঁধানো পার্সেপোলিস নগরী, যেটি আলেকজান্ডারের হাতে ধ্বংস হয়ে গিয়েছিলো। প্রায় আড়াই হাজার বছর আগের প্রাচীন এই শহরই ছিলো সূর্যের নিচে পৃথিবীর সবচেয়ে সমৃদ্ধ শহর। আগুনে পুড়ে ছাই হয়ে যাবার এতো বছর পরেও পার্সেপোলিসের ধ্বংসাবশেষ থেকে দৃষ্টি ফিরিয়ে নেয়া যায় না। ধ্বংস হবার আগে কতোটা জাঁকজমক ছিলো এখানে তা তো কেবল কল্পনার অতীত। পৃথিবীর ইতিহাসে সবচেয় চমৎকার শহর ও প্রাসাদ ডেরিয়াস গড়ে তুলেছিলেন পার্সেপোলিসে। সিংহাসনে বসার পর আকিমেনিড সাম্রাজ্যের নতুন রাজধানী তিনি পার্সেপোলিসেই প্রতিষ্ঠা করেছিলেন। ১৯৭৯ সালে ইউনেস্কো পার্সেপোলিসকে ‘ওয়ার্ল্ড হেরিটেজ সাইট’ এর মর্যাদা দিয়েছিলো।

একজন শ্রেষ্ঠ আকিমেনিড সম্রাটঃ ডেরিয়াস দ্য গ্রেট, Stay Curioussis

পার্সেপোলিসে দারিয়াসের প্রাসাদ

‘পার্সেপোলিস’ একটি গ্রীক শব্দ, যার অর্থ ‘পারস্যের শহর’। পারস্যের ইতিহাসে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ শহর ছিলো পার্সেপোলিস। আকিমেনিড সাম্রাজ্যের প্রথম রাজধানী প্যাসারগাদেই থেকে ৮০ কিলোমিটার দক্ষিণে অবস্থিত এই শহরের প্রবেশপথ থেকে শুরু করে প্রতিটি স্থাপনাই ছিলো কল্পনাতীত সুন্দর। পার্সেপোলিসে ডেরিয়াসের প্রাসাদের অক্ষত ও ধ্বংসপ্রাপ্ত ১০০টি কলাম থেকে বিশেষজ্ঞরা একটি কাল্পনিক প্রতিকৃতি তৈরী করেছেন, যেটি নিঃসন্দেহে কোনো বিস্ময় থেকে কম কিছু নয়। প্রাসাদের প্রায় ৬৬ ফুট উঁচু ছাদটিও ছিলো মানুষের হাতে তৈরী, অথচ কি চমৎকার কাজ!

ডেরিয়াসের প্রতিটি কাজে তার প্রখর বুদ্ধিমত্তার পরিচয় পাওয়া যায়। রাজ্যে শান্তি স্থাপনে তিনি ছিলেন ভীষণ মনোযোগী। আবার একই সাথে কঠোর হতেও কার্পণ্য করতেন না, যার প্রমাণ ‘বেহিশতুন শিলালিপি’। রাউলিনসন হেনরির পাঠোদ্ধার করা এই শিলালিপিটি গুরুত্বপূর্ণ বাণিজ্যপথ সিল্ক রুটের প্রধান সংযোগ রয়্যাল রোডের একটি স্থানে ভূমি থেকে ১০৫ মিটার উচ্চতায় পাহাড়ের গায়ে খোদাই করে তৈরী করা হয়েছে এবং তৈরীর পর নিচের অংশটা ভেঙে দেয়া হয়েছে যেনো কেউ কোনোদিন সেই উচ্চতায় পৌঁছতে না পারে। শিলালিপি তৈরীর ধরন দেখে মনে হয়, রাজা জনসাধারণের মনে তার কঠোরতার দৃষ্টান্ত দেখানোর জন্যই এটি তৈরী করেছিলেন। প্রাচীন পার্সিক, ইলামাইট ও আক্কাদিয়ান বা ব্যবিলনিয়ান –এই তিন ভাষায় লেখা শিলালিপিটিতে সম্রাট ডেরিয়াস স্পষ্টভাবে ঘোষণা করে গেছেন তার পরিচয় এবং সাইরাস দ্য গ্রেটের সাথে তার বংশগত সংযোগের কথা। সেই সাথে লিখে গেছেন, তার বিরুদ্ধাচারী ও অন্যায়কারীদেরকে তিনি কঠোর শাস্তি দিয়ে থাকেন, আর এই উদ্দেশ্য সাধনের জন্য স্বয়ং আহুরা মাজদা তাকে পাঠিয়েছেন। আহুরা মাজদা হলো জরাথ্রুস্টবাদীদের ঈশ্বর। আসলে প্রাচীন সময়ে দেবতা বা ঈশ্বরের নাম ব্যবহার করে নিজের প্রচারণা চালানো ছিলো শাসকদের অবলম্বন করা একটি রাজনৈতিক কৌশল, যার মাধ্যমে জনমনে সহজেই ভয় ও ভক্তি তৈরী করা যেতো। বিরুদ্ধাচারীদের শাস্তি প্রদানের একটি নমুনা শিলালিপির খোদাই চিত্র থেকেই স্পষ্ট করেছেন ডেরিয়াস। চিত্রটি থেকে দেখা যায়, উপরে আহুরা মাজদা সম্রাট ডেরিয়াসকে আশীর্বাদ করছেন, ডেরিয়াসের পায়ের নিচে পদদলিত তার সিংহাসন আত্মসাৎ এর প্রচেষ্টাকারী এবং সম্মুখে পেছনের দিকে হাত বাঁধা অবস্থায় দাঁড়ানো আরো অনেক অপরাধী। গ্রীক বর্ণনাগুলো থেকে জানা যায়, পার্সিয়ান শাসকেরা শাস্তিস্বরূপ বিভিন্ন অঙ্গ-প্রত্যঙ্গ, বিশেষ করে নাক কেটে নিতো।

একজন শ্রেষ্ঠ আকিমেনিড সম্রাটঃ ডেরিয়াস দ্য গ্রেট, Stay Curioussis

শাহনামার যুদ্ধের দৃশ্যের সাথে মিলে যায় নাকশে রুস্তমের খাদাইচিত্রগুলো; Source: ancient-origins.net

ডেরিয়াস দ্য গ্রেটের করা আরেকটি চোখ ধাঁধানো কীর্তি হচ্ছে তার নিজের সমাধি, যেটি তিনি তার মৃত্যুর সাত বছর আগে তৈরী করেছিলেন পার্সেপোলিস নগরী থেকে কিছুটা দূরে একটি পাহাড়ের চূড়ায়। তার সমাধির নিচের অংশে খোদাই করা হয়েছে শিলালিপি, যা দেখে তার সমাধিটি আলাদাভাবে সনাক্ত করা যায়। ডেরিয়াস দ্য গ্রেটসহ তার তিন বংশধর- জারজেস, আর্তাজারজেস ও দ্বিতীয় ডেরিয়াস এবং তাদের পরিবারের সমাধিও আছে এখানে। পরবর্তীকালে রচিত ইরানি কবি ফেরদৌসীর কাব্যগ্রন্থ ‘শাহনামা’ এর সাথে ডেরিয়াসের সমাধির খোদাইচিত্রগুলো ভীষণভাবে মিলে যায়। তাই ‘শাহনামা’ এর পাঠকরা এটিকে প্রথম দিকে শাহনামা যুদ্ধের বীর রুস্তমের কাহিনী ভেবে ভুল করলো। আর সেই থেকেই এই সমাধির নামকরণ হলো ‘নাকশে রুস্তম’ বা ‘রুস্তমের চিত্র’। সমাধির প্রবেশমুখগুলো ক্রুশ আকৃতির।

একজন শ্রেষ্ঠ আকিমেনিড সম্রাটঃ ডেরিয়াস দ্য গ্রেট, Stay Curioussis

নাকশে রুস্তম; Source: ancient-origins.net

ডেরিয়াস দ্য গ্রেটের বিশাল ও সুশৃঙ্খল সেনাবাহিনীর ইতিহাস নজিরবিহীন। গ্রীক পন্ডিত হেরেডোটাসের বর্ণনা থেকে ডেরিয়াসের শক্তিশালী সেনাবাহিনীর কথা জানা যায়। বিভিন্ন প্রদেশ থেকে সর্বোচ্চ যোগ্যতার আসনে অধিষ্ঠিত সুঠাম দেহের অধিকারী সৈন্যদের বেছে বেছে এই সেনাবাহিনীতে নিযুক্ত করতেন ডেরিয়াস। তিনি নিজের আত্মবিশ্বাস ও সেনাবাহিনীর শক্তির জোরেই এতো এতো রাজ্য জয় করে বিশাল আকিমেনিড সাম্রাজ্য গড়তে সক্ষম হয়েছেন। গ্রীকদের বিরুদ্ধে প্রথমবার ডেরিয়াসই যুদ্ধ করেছিলেন, যদিও তাতে পরাজিত হয়েছিলেন তিনি।

পৃথিবীর সর্বশ্রেষ্ঠ শাসকদের মধ্যে ডেরিয়াসের নাম আনতেই হবে। প্রাচীন খোদাইচিত্রগুলো, নাকশে রুস্তম, বেহিশতুন, পার্সেপোলিস –সবাই যেনো প্রতিনিয়ত চিৎকার করে জানিয়ে দিয়ে যাচ্ছে; সর্বোচ্চ যোগ্যতার সাথে আকিমেনিডকে আঁকড়ে ধরবার এবং পূর্ণ জীবনবোধ দিয়ে তাকে টিকিয়ে রাখবার মতো একজনই জন্মেছিলেন হাজার হাজার বছর আগে। তিনি মহান আকিমেনিড শাসক ডেরিয়াস দ্য গ্রেট।

রেফারেন্সঃ

উর্বশি-পুরুরবাঃ স্বর্গের অপ্সরী ও মর্ত্যের মানুষের ভালোবাসার গল্প

ভারতীয় পুরাণের এক অমূল্য নিদর্শন হচ্ছে মহাভারত। প্রাচীন ও সুবিশাল এই মহাকাব্যটিকে গন্য করা হয় পৃথিবীর প্রাচীন চার বিখ্যাত মহাকাব্যের একটি হিসেবে। এই বিশাল  কাহিনি-কাব্যের পাতায় পাতায় আছে রাজনীতি, কূটনীতি, দর্শন, যুদ্ধ,ভালোবাসা, রাজাদের বীরত্বগাঁথা ইত্যাদি। বলা হয় যা...

নীল পূজার লোককাহিনী: নীলের ঘরে দিলাম বাতি

'নীলের ঘরে দিলাম বাতি      সাক্ষী থেকো মা ভগবতী।' বাঙালির বারো মাসে তেরো পার্বণ। বছরজুড়ে উৎসবের শেষ নেই। আর গ্রামবাংলার লৌকিক উৎসব আর পার্বণ তো অগণ্য। বাঙালি হিন্দুদের তেমনি এক পার্বণ হলো নীলের পূজা। কালের চক্রে শহুরে হিন্দুসমাজে তেমন একটা প্রচলন আজকাল না থাকলেও...

কর্ণ, ভীষ্ম সংবাদ

রাত্রি দ্বিপ্রহর। চারিদিক নিস্তব্ধ, ভয়ংকর নিরবতায় আচ্ছন্ন। দূরথেকে কয়েকটা কুকুরের ডাক ভেসে আসছে। কুরুক্ষেত্রের বিশাল প্রান্তর এখন যেনো এক বিরান মরুভূমিতে পরিনত হয়েছে। হঠাৎ কৌরব শিবিরের একটি তাঁবু থেকে দীর্ঘকায়, সুঠামদেহী একটি ছায়ামূর্তি বের হয়ে এলো। পাহারারত প্রহরীরা...

ভয়ংকর শরভ অবতার

ভারতীয় পুরাণে উল্লিখিত দেবতা বিষ্ণুর দশ অবতারের কথা সর্বজনবিদিত। ধরায় যখন পাপাচার অনেক বেড়ে যায় তখন শিষ্ঠের পালন ও দুষ্টের দমনে  বিষ্ণু অবতার রূপ ধারন করেন।  কিন্তু পুরাণের আরেক প্রভাবশালী দেবতা মহাদেব শিবেরও বেশ কিছু অবতারের ব্যাপারে জানা যায়, তার মধ্যে উল্লেখযোগ্য...

সত্যবতী ও বেদব্যাস

কৃষ্ণদৈপায়ন ব্যাসের রচিত মহাভারত এক অত্যাশ্চর্য এবং প্রাচীন ভারতীয় সাহিত্যের সর্ব বৃহৎ গ্রন্থ। শাস্ত্র বিশেষজ্ঞ বলে থাকেন কুরুক্ষেত্র যুদ্ধের কালসীমা খ্রী. পূ. ৩০০০ অব্দের আশপাশে (যদিও মতান্তর আছে)। তার কিছুকাল পর মহাভারত রচিত হয়। মহাভারত গল্প যেকোনো আধুনিক গল্পের...

প্যারীসুন্দরী দেবীঃ নীল বিদ্রোহের অন্যতম জননেত্রী

আঠারো শতক। অবিভক্ত বাংলার নদীয়া জেলা। কুষ্টিয়া তখনও স্বতন্ত্র কোনো জেলা নয়। কুমারখালির ইংরেজ রেশম কুঠির নায়েব রামানন্দ সিংহের ঘর আলো করে জন্ম নিলো ফুটফুটে এক মেয়ে শিশু, রামানন্দের ছোট মেয়ে প্যারীসুন্দরী দেবী। দিন গড়াতে লাগলো। পলাশীর যুদ্ধের পর কুষ্টিয়ার মীরপুর উপজেলার...

নওয়াব ফয়জুন্নেসা

নওয়াব ফয়জুন্নেসা ছিলেন দক্ষিণ এশিয়ার প্রথম ও একমাত্র মহিলা নওয়াব ও নারীশিক্ষার পথ প্রদর্শক। তিনি শুধুমাত্র নিজের অদম্য ইচ্ছার কারণে শিক্ষা লাভ করেন। শিক্ষা, সমাজকল্যাণ ও সেবাব্রতে তিনি যে উদাহরণ সৃষ্টি করেছেন তা ইতিহাসে বিরল। তাঁর জন্ম ১৮৩৪ সালে। তিনি একাধারে ছিলেন...

বেগম আখতার

ভারতীয় সঙ্গীত ঐতিহ্যের এক উজ্জ্বল নক্ষত্র বেগম আখতার ওরফে 'আখতারি বাঈ ফৈজাবাদি'। সাধারণভাবে আপামর ভারতবাসীর কাছে সুমিষ্ট গজল পরিবেশনের জন্য ইনি 'মালেকা-এ-গজল' বা 'গজলের রাণী' বলে পরিচিত হলেও শুধু গজল নয়, দাদরা-ঠুমরীর মত সনাতনী ভারতীয় শাস্ত্রীয় সঙ্গীতের নানা ধারাতেই...

নবনীতা দেব সেন

নবনীতা যখন প্রেসিডেন্সিতে পড়েন সে সময় অমর্ত্য সেনের সঙ্গে তিনি প্রেমে পড়েন। তার মা রাধারানি দেবী মেয়েকে বলেছিলেন, প্রেম করো ঠিক আছে, তবে পর্দা টাঙ্গানো রেঁস্তোরা, সন্ধ্যার পর লেকের ধারে আর সিনেমা, এই তিনটি জায়গায় যাবেনা। রাধারানি দেবী মেয়েকে আঁচলে বেঁধে মানুষ...

হেনরি লুই ভিভিয়ান ডিরোজিয়ো

কলকাতার সাউথ পার্ক স্ট্রিট সেমিট্রিটা দেখার ইচ্ছা ছিলো, কারন এখানে সত্যজিৎ রায়ের ‘ গোরস্তানে সাবধান’ ছবিটির শুটিং হয়েছিলো। পরে এই সেমিট্রি সম্বন্ধে বিস্তারিতভাবে পড়েছি। এটি বিশ্বের প্রাচীনতম নন-চার্চ সেমিট্রিগুলির মধ্যে একটি। ঊনবিংশ শতাব্দীতে সম্ভবত এটিই ছিল ইউরোপ ও...