বখতিয়ার খলজিঃ নালন্দা কি তিনি সত্যি ধ্বংস করেছিলেন?, Stay Curioussis

আপনার আদালত.. জনাব খিলজী সাহেবকে কতটা শাস্তি দেওয়া উচিত?

জেমস মেসটনের সম্পাদনায় হাচিনসনস স্টোরি অব দ্য নেশন বইএর ১৬৮ পাতার বখতিয়ার খলজির নালন্দা ধ্বংসলীলার ছবি। সাম্রাজ্য এইভাবে আমাদের মাথায় নির্দিষ্ট ধারণা প্রবেশ করিয়ে দেয়।

অথচ এইচ জি রাবার্তির অনুবাদে যে মিনহাজইসিরাজএর তবাকতইনাসিরির সংস্করণ পাচ্ছি, সেখানে নির্দিষ্ট নালন্দা বিহারের উল্লেখ নেই, তিনি মুণ্ডিত মস্তক ব্রাহ্মণ খুণের কথা বলেছেন। যে সেনাপতি আফগানিস্তানের ঘোর অঞ্চল থেকে সেনা নায়ক হিসেবে কাজের খোঁজে গোটা উত্তর ভারত ঘুরে বেড়িয়েছেন, বিহারের মির্জাপুর জেলায় দুটো গ্রাম শাসনের জন্যে পাচ্ছেন তিনি বৌদ্ধ এবং ব্রাহ্মণের পার্থক্য বুঝবেন না, এটা বিশ্বাস্য? বখতিয়ার কোনও না কোনও বিহার ধ্বংস করেছিলেন। কিন্তু সেটা যে নালন্দা সে তথ্য কিন্তু বলা নেই।

বখতিয়ার খলজিঃ নালন্দা কি তিনি সত্যি ধ্বংস করেছিলেন?, Stay Curioussis

দ্য এন্ড অফ দ্য বুদ্ধিস্ট মঙ্কস, এ. ডি. ১১৯৩। হাচিনসনের স্টোরি অফ দ্য নেশনস থেকে। এই ছবিতে দেখা যাচ্ছে খিলজি পুথিগুলির বিষয়বস্তু বোঝার চেষ্টা করছেন।

Muhammad-i-Bakht-yar, by the force of his intrepidity, threw himself into the postern of the gateway of the place, and they captured the fortress, and acquired great booty. The greater number of the inhabitants of that place were Brahmans, and the whole of those Brahmans had their heads shaven; and they were all slain. There were a great number of books there; and, when all these books came under the observation of the Musalmans, they summoned a number of Hindus that they might give them information respecting the import of those books; but the whole of the Hindus had been killed. On becoming acquainted [with the contents of those books], it was found that the whole of that fortress and city was a college, and in the Hindui tongue, they call a college [مدرسه] Bihar.

 

আমি এখানে হার্টমুট স্কার্ফির(Hartmut Scharfe) এডুকেশন ইন এনসিয়েন্ট ইন্ডিয়ার ১৫০ পাতা আর তানসেন সেনের বুদ্ধিজম ডিপ্লোম্যাসি এন্ড ট্রেডএর ১০৭ পাতা নির্দিষ্ট ঘটনা উল্লেখ করব। তাঁদের সূত্রে পাচ্ছি এই কথিত আক্রমনের পরেও নালন্দা বেঁচেছিল। তানসেন সেন বলছেন, তিব্বতি ধর্মাঙ্কুর ধর্মস্বামী (১১৮৪-১২৬৪), রাহুলশ্রীভদ্রের অধীনে নালন্দায় পড়াশোনা করছিলেন, ১২৩৫ সালে। তিনি পূর্ব ভারতে বৌদ্ধ ধর্মের পতনম্নুখ অবস্থার কথা উল্লেখ করেছেন। বখতিয়ারের ঘটনাটা ঘটেছিল ১২০৫ সালে। এই ঘটনা তার মাত্র ৩০ বছর পরের। হার্টমুট বলছেন এখানে তিনি ধনবা ও গুণবা দুটি দীঘি দেখেছিলেন। নালন্দায় রাহুলশ্রীভদ্রের অধীনে তিব্বতি ধর্মাঙ্কুর ধর্মস্বামী বা Chag Chosrjedpal, 1194-1264, বৌদ্ধ দর্শন বিষয়ে পাঠ নিচ্ছেন। এর পরের ঘটনা ৫০ বছর পর। তানসেন সেন বলছেন, এর দুশ বছর পরের চৌদ্দশতে Tinabotuo দীনবতী বা ধ্যানভদ্র (মূলে আছে Chanxian তাহলে কি Dhyanabhadra?])র সম্মানে লেখা একটি একটি কোরিয় লেখ উল্লেখ করে তানসেন সেন বলছেন প্রখ্যাত ভিক্ষু Zhikong বা শূন্যদিশ্যকে ১২৫৪ সালে মোঙ্গল রাজধানী বেইজিং যাবার জন্যে শিক্ষিত এবং তৈরি করা হচ্ছিল নালন্দায়। তানসেন বলছেন, মগধের ধনবান শ্রেষ্ঠীদের এবং মুসলমান রাজার বন্ধু রাজা বুদ্ধসেনএর থেকেও আর্থিক সাহায্য পেত।

[The teaching of Buddhist doctrines at Nalanda, in fact, lingered on even after the invasion of Islamic forces in the twelfth century. The Tibetan monk DharmaSvamin (Chag Chosrjedpal, 1194-1264) , for example, points out the declining state of the monastic institution in 1235. However, he was still able to spend several months studying Buddhist philosophy under the monk Rahulasribhadra at the Monastery. Moreover, according to a Korean inscription dedicated to the fourteenth-century Indian monk Tinabotuo (Dinavati; also known as Chanxian [Dhyanabhadra?] and Zhikong [Sunyadisya?] ), the Indian master was trained and ordained at Nalanda before he traveled to Beijing, the Mongol capital, in 1254. Nalanda seems to have continued to receive support in the thirteenth century from wealthy merchants and the Magadhan king Buddhasena, who had forged an alliance with the local Muslim rulers]