আমার শহর, Stay Curioussis

১৯৬০ এর দশকের পত্রিকায় ট্রানজিস্টর রেডিও এবং টেলিভিশনের বিজ্ঞাপন। সাধারনের কাছে একসময় ট্রানজিস্টর নামে এই রেডিও পরিচিতি পায়। বিজ্ঞাপনে এধরনের রেডিওর ক্ষুদ্রাকার আর সহজ বহনযোগ্যতাকেই মূল আকর্ষণ হিসাবে চিহ্নিত করা হয়েছে।

পূর্বকথাঃ বিশ শতকের প্রথমভাগের ঢাকা- মৌচাকের মত বুড়িগঙ্গার ধার ঘেষে দানা বেঁধে থাকা ঢাকা। কবি শামসুর রাহমানের ভাষায় –“এত দরদালান ছিল না, বাস ছিল না, মোটর ছিল না, এমনকি রিকশাও ছিল না..”। পাড়ায় পাড়ায় তখনও বিদ্যুৎ পৌঁছেনি। সাদামাটা সেই জীবনে কোনো বস্তুতে স্বয়ংক্রিয়তার সামান্য ছোঁয়া পেলেই ঢাকাবাসীরা তার নামে জুড়ে দিচ্ছে ‘কল’ এর উপমা। অধ্যাপক কাজী মোতাহার হোসেন তার শৈশবে ব্যবহৃত ছাতাকেও কলের ছাতা হিসেবে উল্লেখ করেছেন কারণ তা “একটা ঘোড়া টিপলেই খুলে যেতো!” এরকম আরো নানান কলের বস্তুর সাথে নগরবাসীর ততদিনে পরিচয় হয়েছে, যেমন কলের গাড়ি, কলের গান ইত্যাদি। এসবের মাঝে পেতলের লম্বা চোঙওয়ালা কলের গান তখন অবস্থাপন্ন পরিবারের অতি আদরের সম্পদ। ৭৮ আরপিএম এর একটি রেকর্ডের দু’পাশ মিলিয়ে মোট সাত মিনিটের দু’টি গান, হাতল ঘুরিয়ে দম দিয়ে তাই শুনবার বিপুল আয়োজন। এই আয়োজন শুনবার জন্য পাড়ার ছেলেমেয়ে বুড়ো সকলে সুযোগ পেলেই কলের গানের চারপাশে জড়ো হন।

ইতিমধ্যে রেডিও এলো বাজারে। রেডিওর কল্যাণে গানের ভাণ্ডার যেমন হল অফুরান তেমনি তার সাথে যোগ হল বৈচিত্রময় নানা আয়োজন যেমন কথিকা, সংবাদ, নাটক ইত্যাদি। কলের গানের আবেদন অবশ্য পুরোপুরি ফুরিয়ে গেলো না। অনেকক্ষেত্রে রেডিওর সাথে যুক্ত হয়ে তার নাম হল গ্রামোরেডিও। কেবিনেটওয়ালা এই গ্রামোরেডিওতে রেকর্ড রাখবার আলাদা ব্যবস্থা ছিল। বাঙালি পরিবারে এটা ছিল অনেকটা ‘বেস্ট পিস অব ফার্নিচার’ এর মতন। পারিবারিক বহু আলোকচিত্রে এর আশেপাশে বসে ছবি তুলবার নজির দেখা যায়।

কেমন ছিল আদিকালের রেডিও? ভ্যাকুয়াম টিউব বা ভালবের সেসব রেডিওর আকার ছিল ঢাউস, সাথে যুক্ত থাকতো তামার দীর্ঘ এন্টেনা। বিদ্যুৎ না থাকলে বড় আকারের ব্যাটারি দিয়ে চলত ্সেই রেডিও। টিউবের রেডিও অবশ্য নব ঘোরালেই বাজতো না। প্রায় মিনিটখানেক সময় নিয়ে টিউব গরম হত, এরপর গমগমে শব্দে গান বেজে উঠতো। কাজেই হাতে সময় নিয়ে না ছাড়লে দেখা যেতো প্রিয় গানটাই শেষ হয়ে গেছে! তবে আকৃতি যা-ই হোক, অল্প সময়েই রেডিও বেশ জনপ্রিয়তা অর্জন করে। সাহিত্যিক ইমদাদুল হক মিলন গেন্ডারিয়ার দীননাথ সেন রোডের বাড়িতে রেডিওর আগমন নিয়ে লিখেছেন – “সেই বাড়িতে প্রথম রেডিও কিনলেন আমার বাবা। মারফি কোম্পানির রেডিও। সেই রেডিও শোনার জন্য পাড়ার লোক ভিড় করত। উঠোনের মাঝখানে কাঠের চেয়ারের উপর রেডিও, চারপাশে ভিড় করা মানুষজন। আমরা ছোটরা মুগ্ধ হয়ে রেডিওর দিকে তাকিয়ে আছি। আকাশবাণী কলকাতা, রেডিও পাকিস্তান ঢাকা, কী সুন্দর সুন্দর গান, যন্ত্রসঙ্গীত, খবর, কথিকা”। স্থানীয় সংবাদের সাথে নিজ নিজ হাতঘড়ির সময় মিলিয়ে নেয়া ঢাকাবাসীর প্রতিদিনকার জীবনেরই একটা অংশ হয়ে গেলো। গ্রুন্ডিক, ফিলিপ্স, মারফি এরকম নানান ব্র্যান্ডের রেডিও তখন বাজারে। ইতিমধ্যে পুরাতন বাদ্যযন্ত্রের দোকানগুলিতে বিক্রয়পণ্যের তালিকায় যুক্ত হয়েছে রেডিওর নাম। তৎকালীন ভিক্টোরিয়া পার্কের বিপরীতে ঢাকা মিউজিক্যাল মার্ট এবং জে এন দাসের দোকান, পাটুয়াটুলিতে এস ব্যানার্জি এবং রয় এণ্ড সন্স- এই দোকানগুলোতে আর সব বাদ্যযন্ত্রের সাথে পাওয়া যেতো কলের গান আর রেডিও। রেডিওর জনপ্রিয়তাকে ঠিকঠাক কাজে লাগালো ঢাকার অনেক রেস্তোরাঁ । নবাবপুর রেলগেটের কাছে ক্যাপিটাল রেস্তোরাঁয় চপ, কাটলেট আর চা এর পাশাপাশি কাস্টমারদের জন্য অন্যতম আকর্ষণ ছিল রেডিও সিলোনের ‘বিনাকা গীতমালা’, ‘বিনাকা হিট প্যারেড’ আর আকাশবাণী কলকাতার ‘অনুরোধের আসর’।

১৯৪৭ সালে যুক্তরাস্ট্রের বেল ল্যাবরেটরির তিন বিজ্ঞানী ব্রাডলি, ব্রাটেইন আর শকলির ট্রানজিস্টর আবিষ্কার গোটা বিশ্বকে মানুষের হাতের মুঠোয় নিয়ে এলো। বদলে গেলো মানুষের দৈনন্দিন ব্যবহৃত বহু পণ্যের আকৃতি আর কর্মক্ষমতা। টিউবের বদলে ট্রানজিস্টরের ব্যবহারে রেডিওর আকার হল খেলনার সমান, সহজে বহনযোগ্য। দামও চলে এলো জনসাধারণের নাগালের ভেতরে। ১৯৬৩ সালে ঢাকা কেন্দ্র থেকে খেলাধুলার অনুষ্ঠান সরাসরি সম্প্রচার শুরু হল। পারিবারিক বিনোদনের সেই রেডিও তখন উঠে এলো পথচলতি মানুষের হাতে হাতে। এ অঞ্চলের জনসাধারণ একসময় তাদের অতিপ্রিয় এই ট্রানজিস্টর রেডিওকে ট্রানজিস্টর নামেই ডাকা শুরু করল।

উল্লেখ্য, যে ট্রানজিস্টরের আবিষ্কার মানব সভ্যতায় নতুন দিনের সূচনা করেছিল তার জন্য তিন বিজ্ঞানীকে ১৯৫৬ সালে পদার্থবিজ্ঞানে নোবেল পুরস্কার দিয়ে সম্মানিত করা হয়।
 
সহায়ক গ্রন্থঃ
১. ভারত বিচিত্রা, নভেম্বর, ২০১৩।
২. শ্রোতার কৈফিয়ত, আব্দুশ শাকুর, বেঙ্গল পাবলিকেশন্স, ২০১২
৩. জীবনের সাতরং, সাঈদ আহমদ, সাহিত্য প্রকাশ, ২০০৭
৪. স্মৃতির ঢাকা, সম্পাদনাঃ কাজল ঘোষ, নালন্দা, ২০১২।