তাজমহল বিক্রির রহস্য, Stay Curioussis

তাজমহল বিক্রির আসল রহস্য কি??

অবিশ্বাস্য হলেও সত্য, ব্রিটিশ ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানী আগ্রার মুসলিম ঐতিহ্য তাজমহল ভাঙার চিন্তা করেছিল! অদ্ভুৎ শোনা গেলেও, ১৮৩০ সালে ব্রিটিশ গভর্নর জেনারেল লর্ড বেন্টিক তাজমহল বিক্রি করার সিদ্ধান্ত নেয়। সত্যিই কি তাজমহল বিক্রি হয়েছিল? নাকি ব্রিটিশ গভর্নর জেনারেল লর্ড বেন্টিকের নামে নিন্দুকেরা মিথ্যা দোষারোপ করেছিল? আসুন জানা যাক সে কাহিনি।

তাজমহল বিক্রির রহস্য, Stay Curioussis

সম্প্রতি, সেই ১৮৩০ সালের চাঞ্চল্যকর কাহিনীর সুরাহা করতে জওহরলাল নেহেরু বিশ্ববিদ্যালয়ের আর্ট হিস্টরি বিভাগের অধ্যাপক কবিতা সিং গত কয়েক বছর ধরে ভারত ও ব্রিটেনে বহু সেমিনারে তথ্য প্রমাণসহ তাজমহল বিক্রির নেপথ্যের কাহিনি তুলে ধরেন। বিশ্বের সপ্তমাশ্বার্চযের একটি ভারতের আগ্রার মোঘল আমলে নির্মিত স¤্রাট শাহজাহানের অমর প্রেমের নিদর্শন মমতাজ মহলের সমাধি তাজমহল। যা প্রত্যেকবারই নতুন আশ্বর্য ও বিস্ময় মনে হয়। যার নির্মাণ শুরু হয় ১৬৩২ সালে এবং শেষ হয় ১৬৫৩ সালে। উস্তাদ আহমেদ লাহুরি তাজমহলের প্রধান নকশাকার। যেখানে তিনি নির্মাণশৈলীতে পারস্য, তুরস্ক, ভারতীয় এবং ইসলামী স্থাপত্য শিল্পের এক অনন্য সন্মিলন ব্যবহার করেছেন। জানা যায়, তাজমহল বিক্রির আসল রহস্য তাজমহল নয়, ‘আগ্রা ফোর্ট’ থেকে শুরু –

প্রথমে ব্রিটিশ গভর্নর জেনারেল লর্ড বেন্টিক আগ্রা ফোর্টের ভেতরের ‘দিওয়ান এ-খাস’, ও হাম্মামখানার বিভিন্ন জিনিসপত্র নিলামে তুলে লন্ডনে বিক্রির ব্যবস্থা করেন। বর্তমানে আপনি ‘দিওয়ান এ-খাস’ এর ভেতরে প্রবেশ করলেই দেখবেন যে, শাহী হাম্মামখানার ভেতরের অংশের একপাশের দেয়ালে সাদা চুনকাম করা যা মোঘল স্থাপত্যের সাথে সম্পূর্ণ বেমানান। এমনকি, সেখানে দুটি দরজা নতুন সংযোজন বলে প্রতীয়মান হয়। আগ্রা ফোর্টের মার্বেল বিক্রির ঘটনা ছিল পরীক্ষামূলক। তারপর তিনি তাজমহল বিক্রির মহাপরিকল্পনা করেন। কিন্তু সম্পূর্ণ তাজমহল নিলামে তোলা হলে ৫০০ ডলারের বেশি না উঠায় সেই যাত্রায় তাজমহল ব্রিটিশদের লোভাতুর চক্ষু থেকে রক্ষা পায়। অবশ্য লর্ড বেন্টিকের বন্ধুরা ও সকল ব্রিটিশ ইতিহাসবিদরা এসবকে পুরোপুরি মিথ্যা অপপ্রচার এবং এর কোন সাক্ষ্যপ্রমাণ নেই বলে উল্লেখ করেন। কিন্তু আজও লন্ডনের ভিক্টোরিয়া এন্ড আলবার্ট মিউজিয়ামে আগ্রা ফোর্টের অলংকৃত কলাম প্রদর্শিত হচ্ছে। অথচ ইংরেজ রাজনীতিবিদ মার্কুস বেরেসফোর্ড, তাঁর ‘জার্নাল অব মাই লাইফ ইন ইন্ডিয়া’ গ্রন্থে এবং ইংরেজ প্রশাসক স্যার উইলিয়াম সিলিম্যান তাঁর বিখ্যাত আতœজীবনীতে তাজমহল ও আগ্রা ফোর্টের মার্বেল বিক্রির উল্লেখ করেছেন। বেরেসফোর্ড বলেন – ‘যে শ্বেত মার্বেলগুলো লন্ডনে নেয়া হয়েছিল সেগুলো তাদের আধুনিক ভবনের সাথে খাপ খাই না, বিধায় পাথরগুলোকে পেপার ওয়েট ও কোন কোন ক্ষেত্রে তরকারী কাটার পাথর হিসেবে ব্যবহার করা হয়। আর বেন্টিকের পাঠানো তাজ বিক্রির প্রস্তাবনার কপি কমান্ডার স্যার এইচ ফেনের কাছে ছিল।’

এছাড়া ‘ফানি পার্কস’ ভ্রমনবৃত্তান্তে এ বিষয়ে লেখা আছে। এমনকি ১৮৩১ সালের ২৬ জুলাই ‘জন বুল’ নামক (পরবর্তীতে দ্যা স্টেটসম্যান পত্রিকা) সংবাদপত্রে এই সংবাদ প্রকাশিত হয়। সবচেয়ে আশ্বর্যজনক ঘটনা হলো, মথুরার শেঠ লক্ষœীচাঁদ জৈন নিলামে প্রস্তাবিত মূল্য ২ লাখ রুপির ডাকও দিয়েছিলেন এবং ২য় বার নিলাম উঠলে তিনি ৭ লাখ প্রস্তাব করেছিলেন। তৎকালীন পত্রপত্রিকায় তাজমহল বিক্রির নিলামের সে সংবাদ ঘটা করে প্রকাশও করা হয়েছিল।

তাজমহল বিক্রির রহস্য, Stay Curioussis
তাজমহল বিক্রির রহস্য, Stay Curioussis

দুনিয়ার সামনে নতুন করে এই বিতর্ক আবার নিয়ে আসেন লক্ষœীচাঁদ জৈন এর বংশধর বিজয় কুমার জৈন ২০০৫ সালে “মথুরা শেঠ” নামক একটি বই প্রকাশ করে। যেখানে তিনি এসব তথ্য লিপিবদ্ধ করেছেন। যাইহোক, ব্রিটিশ গভর্নর জেনারেল লর্ড বেন্টিক তাজমহল বিক্রি করার যে হাস্যকর ও একইসাথে ভয়ংকর সিদ্ধান্ত নেয় তা তাকে বিশ্ব ইতিহাসে সবচেয়ে বোকা হিসেবে পরিচিত করেছে। আসলে, উইলিয়াম বেন্টিক, ১৮২৮ সালে ব্রিটিশ ইন্ডিয়ার গভর্নর জেনারেল হয়ে আসেন। তাকে কোম্পানীর আর্থিক ব্যবস্থার উন্নয়ন ও ব্যালান্স করার উদ্দেশ্যে নিয়োগ দেয়া হয়। কারণ বার্মার সাথে ব্রিটিশদের যুদ্ধের সময় তাদের প্রচুর অর্থ ব্যায় হয় ফলে অর্থাভাব দেখা দেয়। যাইহোক, নিলামে বেশি মূল্য না উঠায় এবং সাম্প্রদায়িকতার সংঘর্সের ভয়ে সে যাত্রাই সম্রাট শাহজাহানের অমরকীর্তি তাজমহল রক্ষা পায়, যা আজও জাজ্বল্যমান। তাজমহল বিশ্বের সপ্তমাশ্বার্চযের অন্যতম সাংস্কৃতিক ঐতিহ্য হিসেবে বিবেচিত।

তাজমহল বিক্রির রহস্য, Stay Curioussis

উর্বশি-পুরুরবাঃ স্বর্গের অপ্সরী ও মর্ত্যের মানুষের ভালোবাসার গল্প

ভারতীয় পুরাণের এক অমূল্য নিদর্শন হচ্ছে মহাভারত। প্রাচীন ও সুবিশাল এই মহাকাব্যটিকে গন্য করা হয় পৃথিবীর প্রাচীন চার বিখ্যাত মহাকাব্যের একটি হিসেবে। এই বিশাল  কাহিনি-কাব্যের পাতায় পাতায় আছে রাজনীতি, কূটনীতি, দর্শন, যুদ্ধ,ভালোবাসা, রাজাদের বীরত্বগাঁথা ইত্যাদি। বলা হয় যা...

নীল পূজার লোককাহিনী: নীলের ঘরে দিলাম বাতি

'নীলের ঘরে দিলাম বাতি      সাক্ষী থেকো মা ভগবতী।' বাঙালির বারো মাসে তেরো পার্বণ। বছরজুড়ে উৎসবের শেষ নেই। আর গ্রামবাংলার লৌকিক উৎসব আর পার্বণ তো অগণ্য। বাঙালি হিন্দুদের তেমনি এক পার্বণ হলো নীলের পূজা। কালের চক্রে শহুরে হিন্দুসমাজে তেমন একটা প্রচলন আজকাল না থাকলেও...

কর্ণ, ভীষ্ম সংবাদ

রাত্রি দ্বিপ্রহর। চারিদিক নিস্তব্ধ, ভয়ংকর নিরবতায় আচ্ছন্ন। দূরথেকে কয়েকটা কুকুরের ডাক ভেসে আসছে। কুরুক্ষেত্রের বিশাল প্রান্তর এখন যেনো এক বিরান মরুভূমিতে পরিনত হয়েছে। হঠাৎ কৌরব শিবিরের একটি তাঁবু থেকে দীর্ঘকায়, সুঠামদেহী একটি ছায়ামূর্তি বের হয়ে এলো। পাহারারত প্রহরীরা...

ভয়ংকর শরভ অবতার

ভারতীয় পুরাণে উল্লিখিত দেবতা বিষ্ণুর দশ অবতারের কথা সর্বজনবিদিত। ধরায় যখন পাপাচার অনেক বেড়ে যায় তখন শিষ্ঠের পালন ও দুষ্টের দমনে  বিষ্ণু অবতার রূপ ধারন করেন।  কিন্তু পুরাণের আরেক প্রভাবশালী দেবতা মহাদেব শিবেরও বেশ কিছু অবতারের ব্যাপারে জানা যায়, তার মধ্যে উল্লেখযোগ্য...

সত্যবতী ও বেদব্যাস

কৃষ্ণদৈপায়ন ব্যাসের রচিত মহাভারত এক অত্যাশ্চর্য এবং প্রাচীন ভারতীয় সাহিত্যের সর্ব বৃহৎ গ্রন্থ। শাস্ত্র বিশেষজ্ঞ বলে থাকেন কুরুক্ষেত্র যুদ্ধের কালসীমা খ্রী. পূ. ৩০০০ অব্দের আশপাশে (যদিও মতান্তর আছে)। তার কিছুকাল পর মহাভারত রচিত হয়। মহাভারত গল্প যেকোনো আধুনিক গল্পের...

মেহেদী হাসান খান

মেহেদী হাসান খান ১৮ বছর বয়সের মেহেদী হাসান খান ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজে ডাক্তারি পড়তে ভর্তি হলেন,কিন্তু পড়াশোনায় তার মন নাই! কিন্তু কেন? তিনি নাওয়া- খাওয়া, পড়াশোনা বাদ দিয়ে একটা ছোট্ট কম্পিউটার সম্বল করে বাংলা ভাষায় লেখার জন্য লড়াই শুরু করলেন। একটাই জেদ, বাংলা...

ঢাকার হারিয়ে যাওয়া সংগ্রহশালা- বলধা জাদুঘর

১৯২৫ সালের ঢাকা; ফুলবাড়িয়া রেলস্টেশন থেকে বেরিয়ে রেললাইন ধরে নারায়ণগঞ্জের দিকে কিছুদূর এগুলে উয়ারি। উয়ারির শেষ সীমানায় এক সরু রাস্তা চলে দিয়েছে নারিন্দার দিকে। সরু সেই রাস্তার একপাশে বহু পুরাতন খ্রিস্টান কবরখানা আর তার বিপরীতে উঁচু পাচিলঘেরা কম্পাউন্ডের ভেতর দোতলা...

সুন্দরবন ধ্বংসের ইতিবৃত্ত

ব্রাজিলের চিরসবুজ বিস্তৃত এমাজন (Amazon Rainforest) গহীন বনাঞ্চলকে বলা হয় বিশ্বের ফুসফুস, তেমনি সুন্দরবনও বাংলাদেশের শ্বাস-প্রশ্বাসের এক অঙ্গ। এই ঘন বনাঞ্চল বাংলাদেশের প্রাকৃতিক দুর্যোগেরও এক প্রতিরোধ। সুন্দরবনকে ঘিরে আশেপাশের জনপদে ছড়িয়ে আছে অনেক পৌরাণিক কাহিনী। এমনি...

ঢাকার এক বিস্মৃত চিকিৎসক

দিনটি ছিল ১৫ই নভেম্বর ১৮৬৪ সাল, মঙ্গলবার। সন্ধ্যা নামতে আর বেশি দেরি নেই। নারিন্দার খ্রিস্টান কবরস্থানের দীর্ঘ ঘাসের ঝোপে অবশ্য তখনই অন্ধকার নেমে এসেছে। সন্ধ্যা হলে এই এলাকায় সহজে কেউ পা বাড়ায় না। কিন্তু সেদিন পুরো এলাকা লোকে লোকারণ্য- আছে ইংরেজ, আরমেনিয়, দেশী সব...

ঢাকার ঐতিহাসিক তারা মসজিদ

পূর্বকথাঃ উনিশ শতকের মাঝামাঝি সময়ের কথা। আরমানিটোলার মহল্লা আলে আবু সাঈদে তখন এক প্রভাবশালী জমিদারের বাস, নাম- মীর্জা গোলাম পীর। দাদা মীর আবু সাঈদ  ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানির রমরমা যুগে তুরস্ক থেকে এসে ঢাকায় থিতু হয়েছিলেন। মীর্জা গোলাম পীরের আরেক নাম মীর্জা আহমেদ জান। তবে...