বারলাম ও জোসেফাতঃ খ্রিস্টধর্ম প্রচারক, নাকি বৌদ্ধধর্ম প্রচারক?, Stay Curioussis

হাজার হাজার বছর ধরে মানুষের মুখে মুখে চলে আসছে নানান রকম কাহিনী। কালক্রমে কিছু কাহিনী পরিণত হয়েছে মানুষের ধর্মীয় বিশ্বাসের কেন্দ্রবিন্দুতে। এমনই একটি কাহিনী হচ্ছে ‘বারলাম ও জোসেফাত’ এর কাহিনী। বারলাম এবং জোসেফাত খ্রিস্টান ধর্মের প্রতিষ্ঠিত দুটি চরিত্র। এই কাহিনী অনুসারে, জোসেফাতের জন্ম রাজপরিবারে। জোসেফাতের জন্মের সময় তার বাবা রাজা এবিনার গণকদের কাছ থেকে জানতে পারেন যে, তার ছেলে বড় হয়ে সন্ন্যাসী হবেন। এমন কথা শোনার পর রাজা জোসেফাতকে নিয়ে ভীষণ সতর্ক হয়ে যান। কোনোভাবেই যেনো বার্ধক্য, জরা, সাধু এবং মৃত্যুর দেখা জোসেফাত না পায়; সেই ব্যবস্থাই তিনি করে রাখেন। কিন্তু নিয়তিকে বদলানো তো এতো সহজ নয়। ভাবুক জোসেফাত বড় হবার পর ঠিকই এক দিন তার সামনে বয়সের ভারে কুঁজো বৃদ্ধ, রোগগ্রস্ত ব্যক্তি, ধ্যানরত সন্ন্যাসী এবং মৃত ব্যক্তির লাশ দেখা দেয়। তৎক্ষণাৎ জোসেফাতের ভাবোদয় হয়, জীবনের মর্মার্থ তিনি বুঝতে পারেন এবং সংসারমায়া ত্যাগ করে রাজপ্রাসাদ ছেড়ে চলে যান। উদ্দেশ্যবিহীনভাবে চলতে চলতে এক সময় তিনি একজন শিক্ষকের দেখা পান, যিনি তাকে অনেক ছোট ছোট কাহিনী শোনান। সেই শিক্ষকই হলেন বারলাম। বারলামের দীক্ষায় চোখ খুলে যায় জোসেফাতের এবং খ্রিস্টান ধর্ম গ্রহণ করেন তিনি। পরবর্তীতে জোসেফাতের বাবা রাজা এবিনার, যিনি ধর্মে বিশ্বাসী ছিলেন না, তিনিও এক সময় নিজের ভুল বুঝতে পারেন এবং খ্রিস্টান ধর্ম গ্রহণ করেন।

বারলাম ও জোসেফাতঃ খ্রিস্টধর্ম প্রচারক, নাকি বৌদ্ধধর্ম প্রচারক?, Stay Curioussis

জোসেফাতকে সাধু বারলাম দীক্ষা দিচ্ছেন

বারলাম ও জোসেফাতের এই কাহিনী খ্রিস্টান ধর্মাবলম্বীদের কাছে দিনে দিনে অনেক বেশি জনপ্রিয় হয়ে ওঠে। অষ্টম শতাব্দীর কোনো এক সময় খলিফা আল ওয়ালিদ ইবনে আব্দুল মালিকের আদালতে সেন্ট জন নামের এক ভদ্রলোক ছিলেন। উনি বারলাম এবং জোসেফাত এর কাহিনী লিখেছিলেন। পরে এগারো শতাব্দীতে আবার ডেভিড মার্শাল ল্যাং এর বারলাম ও জোসেফাতের ওপর লেখা ‘দ্য বালাভারিয়ানি’ কাহিনীটিও অনেক জনপ্রিয়তা পেয়েছিলো। এটিও বিভিন্ন ভাষায় বিভিন্ন দেশে খুব জনপ্রিয়তা পেয়েছিলো। এর পরে প্রায় ১২৬০ সালের দিকে জেনেভার আর্চ বিশপ জ্যাকোবো ফ্যাজিও বিভিন্ন কালের সাধু-সন্ন্যাসীদের অনেকগুলো কাহিনী সংকলন করেন এবং সেখানে বারলাম ও জোসেফাতের কাহিনীটি খুব স্পষ্টভাবে তুলে ধরা হয়েছে। এটিও অনেক বেশি জনপ্রিয় হয়ে যায় পুরো ইউরোপে। ১৪৩৮ সাল পর্যন্ত পৌঁছতে পৌঁছতে ইংরেজি সাহিত্যের শুরুর দিকের গ্রন্থগুলোর মধ্যে উইলিয়াম ক্যাক্সটনের একটি গ্রন্থ ছিলো ‘গোল্ডেন লিজেন্ড’ নামের, যেখানে অনেকগুলো মহামানবের জীবনের কাহিনী উল্লেখ করা হয়েছে এবং বারলাম ও জোসেফাত এর কাহিনীটি সেখানেও স্পষ্টভাবে তুলে ধরা হয়েছে। এই কাহিনীটি এতো বেশি জনপ্রিয় হয়ে গিয়েছিলো যে, ১৫০০ সাল পর্যন্ত পৌঁছতে পৌঁছতে বাইবেলের চেয়েও বেশি সংস্করণ প্রকাশ পেয়েছিলো এই বইটির। এরপর জিওফ্রে চসার এই কাহিনী নিয়ে ‘দ্য পারডোনার্স টেইল’ রচনা করেন, যা পরবর্তীতে পার্সিয়ান ও আরবী ভাষায় অনুদিত হয়। পরে এই কাহিনী আবার উল্লেখিত হয় ‘জেস্টা রোমানোরাম’ নামের অনেক বড় একটি সঙ্কলনগ্রন্থে, যেখানে বিভিন্ন ধরনের কাহিনীর সংকলন থাকতো। এই ‘জেস্টা রোমানোরাম’ থেকে উৎসাহিত হলেন শেক্সপিয়র এবং ঐ সংকলন থেকে ছোটো এই কাহিনীটিকে তুলে ধরে রচনা করলেন ‘দ্য মার্চেন্ট অফ ভেনিস’। আর এরই মাধ্যমে বারলাম ও জোসেফাতের কাহিনী সাহিত্যাঙ্গনে চিরকালের জন্য অমর হয়ে যায়।

বারলাম ও জোসেফাতঃ খ্রিস্টধর্ম প্রচারক, নাকি বৌদ্ধধর্ম প্রচারক?, Stay Curioussis

বয়স, জরা, সাধক ও মৃত্যু দেখে জিজ্ঞাসু রাজকুমার জোসেফাত

বারলাম এবং জোসেফাত এর কাহিনী এই সাহিত্যের কারণে ইউরোপে এতো জনপ্রিয় হয়ে যায় যে, তা এক সময় লোকজনের বিশ্বাসের কেন্দ্রবিন্দুতে পরিণত হয়। এমনকি গ্রীক চার্চ দশম শতাব্দীতে বারলাম এবং জোসেফাতকে নিজ ধর্মের সাধুসন্ত বলে মেনে নেয়। ১৬১০ সালের কাছাকাছি সময়ে রোমান চার্চও বারলাম ও জোসেফাতকে সাধুসন্ত হিসেবে মেনে নেয়, যার ভিত্তি হল অষ্টম শতাব্দীর সেন্ট জনের রচনা। এখানেই শেষ নয়, ১৫৭১ সালে ভেনিসের প্রথম ডোজে আলভাইজ মোসেনিগো কিছু হাড়ের টুকরো পর্তুগালের রাজার কাছে উপস্থাপন করেন এবং বলেন যে, এগুলো সাধু জোসেফাতের শরীরের ধ্বংসাবশেষ। এই নিদর্শন পাওয়ার পর পর্তুগালের রাজা নিজের জন্য অনেক বড় অবস্থান তৈরী করে ফেলেন। ১৬৩৩ সালে কোনোভাবে এই ধ্বংসাবশেষ অ্যান্টোয়ার্কে পৌঁছে যায় এবং সেখানেই সংরক্ষণ করা হয়। কিন্তু ১৭৫৫ সালের ফরাসি বিপ্লবের পর গায়েব হয়ে যায় সেই হাড়ের টুকরোগুলো।

অবশেষে সতেরো শতাব্দীতে পাওয়া গেলো এক নতুন তথ্য। ভারতের গোয়াতে এলেন পর্তুগীজ ইতিহাসবিদ ডিওগো ডু কুয়োটো এবং আবিষ্কার করলেন গৌতম বুদ্ধকে, যিনি এক সময়ের মহান ধর্ম প্রচারক ছিলেন। ডিওগো ডু কুয়োটো জানতে পারলেন গৌতম বুদ্ধের জীবন কাহিনী। কি আশ্চর্য! গৌতম বুদ্ধের কাহিনীর সাথে জোসেফাতের কাহিনীর কি অদ্ভূত মিল! প্রশ্ন হলো, আসলেই কি মিল, নাকি একই ব্যক্তির জীবনের অভিন্ন কাহিনী এই দুটো?

বারলাম ও জোসেফাতঃ খ্রিস্টধর্ম প্রচারক, নাকি বৌদ্ধধর্ম প্রচারক?, Stay Curioussis

এর আগেও ১৪৪৬ সালে মার্কো পোলোর একটি বই ছাপা হবার সময় সেই বইয়ের একজন সম্পাদক বলেছিলেন যে, মার্কো পোলো তার বইতে গৌতম বুদ্ধের যে কাহিনী লিখেছেন, তা অদ্ভূতভাবে বারলাম ও জোসেফাতের কাহিনীর সাথে মিলে যায়। অবশেষে ১৯ শতকে সম্পূর্ণভাবে প্রকাশ ঘটে গৌতম বুদ্ধের। জানা যায়, ভারতবর্ষে গৌতম বুদ্ধের এই কাহিনী বহু প্রাচীনকাল থেকেই প্রচলিত।

বারলাম ও জোসেফাতঃ খ্রিস্টধর্ম প্রচারক, নাকি বৌদ্ধধর্ম প্রচারক?, Stay Curioussis

গৌতম বুদ্ধের আদর্শের প্রভাব দীর্ঘ সময় পর্যন্ত ভারতবর্ষে স্থায়ী হয়েছিলো এবং মৌর্য সম্রাট অশোক নিজ উদ্যোগে পৃথিবীর নানা জায়গায় দূত পাঠিয়েছিলেন এই বৌদ্ধ ধর্মের আদর্শকে পুরো পৃথিবীতে ছড়িয়ে দেয়ার উদ্দেশ্যে। এটি যীশুখ্রিস্টেরও জন্মের প্রায় ৩০০ বছর আগের কথা। আর প্রাচীন ভারতবর্ষের সাথে বহিঃর্বিশ্বের বাণিজ্যিক ও সাংস্কৃতিক যোগাযোগের বহুলতার বিষয়ে তো নতুন করে আর বলবার কিছু নেই। ফলে দ্রুতগতিতে চারদিকে ছড়িয়ে পড়ে গৌতম বুদ্ধের গল্পগুলো এবং নানান ভাষায় অনুদিত হবার পর এক সময় নামগুলো পরিবর্তিত হয়ে ‘বারলাম’ ও ‘জোসেফাত’ বনে যায়।

যীশুর জন্মের দুই শতাব্দী আগের একজন ভদ্রলোক ফ্ল্যাভিয়াস জোসেফাস বলেছিলেন, বুদ্ধের এই কাহিনী পশ্চিমা দর্শন বা জুডাইক দর্শন বা জিউসের ধারণাকে প্রভাবিত করে। সে সময় যে এই কাহিনীগুলো প্রচলিত ছিলো, এই কথাই তার প্রমাণ। চতুর্থ শতাব্দীতে সেইন্ট জেরোমও দাবি করেছিলেন যে, তিনি গৌতম বুদ্ধের ব্যাপারে জানেন।

প্রায় ১৫০০ বছর আগে পার্সিয়ান রাজা প্রথম খসরুর কাছে যখন এই কাহিনীটি পৌঁছলো, তখন তিনি একে পহ্লব ভাষায় অনুবাদ করার আদেশ দিলেন, যার ফলে ‘বোধিসত্ত্ব’ হয়ে যায় ‘বুদ্দাসাফ’। এরপর আরবীতে অনুবাদ করা হলে এটি হয়ে যায় ‘ইউদ্দাসাফ’, জর্জিয়ান ভাষায় অনুবাদ করার পর হয় ‘আওদ্দাসাফ’, গ্রীক ভাষায় অনুবাদ করার পর হয় ‘আয়োসাফ’ এবং ল্যাটিনে অনুবাদ করার পর হয়ে যায় ‘জোসেফাত’। অন্য দিকে সিরীয় ভাষায় অনুবাদ হবার পর ‘বালাউভার’ হয়ে যায় ‘বারলাম’। এভাবেই এগারো শতাব্দীর মধ্যে ভারতবর্ষের বাইরে দুটো নতুন চরিত্রের জন্ম হয়, বারলাম ও জোসেফাত নামের দুটো চরিত্র। ভাবা যায়, খ্রিস্টান ধর্মাবলম্বীদের এতো গ্রহণযোগ্য একটি কাহিনী আসলে গৌতম বুদ্ধের কাহিনীরই পরিবর্তিত রূপ?

বারলাম ও জোসেফাতের গল্পের গ্রহণযোগ্যতার ওপর আঙুল তোলা আমাদের উদ্দেশ্য নয়। কেননা, এটি মূলত গৌতম বুদ্ধের জীবনের গল্প হলেও এই বিকৃতি আসলে প্রাচীন ভারতবর্ষের সাথে বাইরের জগতের শক্তিশালী যোগসূত্রকেই বার বার প্রমাণ করে। তবে সঠিক ও সত্যিকার ইতিহাসকে আবিষ্কার করে পাঠকের সামনে তুলে ধরার এই প্রচেষ্টা চিরকালই অব্যাহত রাখতে চাই আমরা।

উর্বশি-পুরুরবাঃ স্বর্গের অপ্সরী ও মর্ত্যের মানুষের ভালোবাসার গল্প

ভারতীয় পুরাণের এক অমূল্য নিদর্শন হচ্ছে মহাভারত। প্রাচীন ও সুবিশাল এই মহাকাব্যটিকে গন্য করা হয় পৃথিবীর প্রাচীন চার বিখ্যাত মহাকাব্যের একটি হিসেবে। এই বিশাল  কাহিনি-কাব্যের পাতায় পাতায় আছে রাজনীতি, কূটনীতি, দর্শন, যুদ্ধ,ভালোবাসা, রাজাদের বীরত্বগাঁথা ইত্যাদি। বলা হয় যা...

নীল পূজার লোককাহিনী: নীলের ঘরে দিলাম বাতি

'নীলের ঘরে দিলাম বাতি      সাক্ষী থেকো মা ভগবতী।' বাঙালির বারো মাসে তেরো পার্বণ। বছরজুড়ে উৎসবের শেষ নেই। আর গ্রামবাংলার লৌকিক উৎসব আর পার্বণ তো অগণ্য। বাঙালি হিন্দুদের তেমনি এক পার্বণ হলো নীলের পূজা। কালের চক্রে শহুরে হিন্দুসমাজে তেমন একটা প্রচলন আজকাল না থাকলেও...

কর্ণ, ভীষ্ম সংবাদ

রাত্রি দ্বিপ্রহর। চারিদিক নিস্তব্ধ, ভয়ংকর নিরবতায় আচ্ছন্ন। দূরথেকে কয়েকটা কুকুরের ডাক ভেসে আসছে। কুরুক্ষেত্রের বিশাল প্রান্তর এখন যেনো এক বিরান মরুভূমিতে পরিনত হয়েছে। হঠাৎ কৌরব শিবিরের একটি তাঁবু থেকে দীর্ঘকায়, সুঠামদেহী একটি ছায়ামূর্তি বের হয়ে এলো। পাহারারত প্রহরীরা...

ভয়ংকর শরভ অবতার

ভারতীয় পুরাণে উল্লিখিত দেবতা বিষ্ণুর দশ অবতারের কথা সর্বজনবিদিত। ধরায় যখন পাপাচার অনেক বেড়ে যায় তখন শিষ্ঠের পালন ও দুষ্টের দমনে  বিষ্ণু অবতার রূপ ধারন করেন।  কিন্তু পুরাণের আরেক প্রভাবশালী দেবতা মহাদেব শিবেরও বেশ কিছু অবতারের ব্যাপারে জানা যায়, তার মধ্যে উল্লেখযোগ্য...

সত্যবতী ও বেদব্যাস

কৃষ্ণদৈপায়ন ব্যাসের রচিত মহাভারত এক অত্যাশ্চর্য এবং প্রাচীন ভারতীয় সাহিত্যের সর্ব বৃহৎ গ্রন্থ। শাস্ত্র বিশেষজ্ঞ বলে থাকেন কুরুক্ষেত্র যুদ্ধের কালসীমা খ্রী. পূ. ৩০০০ অব্দের আশপাশে (যদিও মতান্তর আছে)। তার কিছুকাল পর মহাভারত রচিত হয়। মহাভারত গল্প যেকোনো আধুনিক গল্পের...

মেহেদী হাসান খান

মেহেদী হাসান খান ১৮ বছর বয়সের মেহেদী হাসান খান ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজে ডাক্তারি পড়তে ভর্তি হলেন,কিন্তু পড়াশোনায় তার মন নাই! কিন্তু কেন? তিনি নাওয়া- খাওয়া, পড়াশোনা বাদ দিয়ে একটা ছোট্ট কম্পিউটার সম্বল করে বাংলা ভাষায় লেখার জন্য লড়াই শুরু করলেন। একটাই জেদ, বাংলা...

ঢাকার হারিয়ে যাওয়া সংগ্রহশালা- বলধা জাদুঘর

১৯২৫ সালের ঢাকা; ফুলবাড়িয়া রেলস্টেশন থেকে বেরিয়ে রেললাইন ধরে নারায়ণগঞ্জের দিকে কিছুদূর এগুলে উয়ারি। উয়ারির শেষ সীমানায় এক সরু রাস্তা চলে দিয়েছে নারিন্দার দিকে। সরু সেই রাস্তার একপাশে বহু পুরাতন খ্রিস্টান কবরখানা আর তার বিপরীতে উঁচু পাচিলঘেরা কম্পাউন্ডের ভেতর দোতলা...

সুন্দরবন ধ্বংসের ইতিবৃত্ত

ব্রাজিলের চিরসবুজ বিস্তৃত এমাজন (Amazon Rainforest) গহীন বনাঞ্চলকে বলা হয় বিশ্বের ফুসফুস, তেমনি সুন্দরবনও বাংলাদেশের শ্বাস-প্রশ্বাসের এক অঙ্গ। এই ঘন বনাঞ্চল বাংলাদেশের প্রাকৃতিক দুর্যোগেরও এক প্রতিরোধ। সুন্দরবনকে ঘিরে আশেপাশের জনপদে ছড়িয়ে আছে অনেক পৌরাণিক কাহিনী। এমনি...

ঢাকার এক বিস্মৃত চিকিৎসক

দিনটি ছিল ১৫ই নভেম্বর ১৮৬৪ সাল, মঙ্গলবার। সন্ধ্যা নামতে আর বেশি দেরি নেই। নারিন্দার খ্রিস্টান কবরস্থানের দীর্ঘ ঘাসের ঝোপে অবশ্য তখনই অন্ধকার নেমে এসেছে। সন্ধ্যা হলে এই এলাকায় সহজে কেউ পা বাড়ায় না। কিন্তু সেদিন পুরো এলাকা লোকে লোকারণ্য- আছে ইংরেজ, আরমেনিয়, দেশী সব...

ঢাকার ঐতিহাসিক তারা মসজিদ

পূর্বকথাঃ উনিশ শতকের মাঝামাঝি সময়ের কথা। আরমানিটোলার মহল্লা আলে আবু সাঈদে তখন এক প্রভাবশালী জমিদারের বাস, নাম- মীর্জা গোলাম পীর। দাদা মীর আবু সাঈদ  ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানির রমরমা যুগে তুরস্ক থেকে এসে ঢাকায় থিতু হয়েছিলেন। মীর্জা গোলাম পীরের আরেক নাম মীর্জা আহমেদ জান। তবে...