মানব ইতিহাসে সবুজ রঙের রহস্যময় শিশুর কাহিনি, Stay Curioussis
কালো, সাদা আর তামাটে- এ তিন বর্ণের মানুষ নিয়েই মানব জাতি। কিন্তু পরিচিত এ রঙের বাইরে কেউ যদি বিচিত্র রং নিয়ে জন্মগ্রহণ করে তাহলে তা বিস্ময়ের ব্যাপার। সবুজ রঙা শিশুদের গল্প পুরনো দিনের। এদের নিয়ে অনেক গালগল্পই শোনা যায়। কিন্তু এগুলো কি আসলেই গালগল্প? না এর পেছনে কোনো সত্য রয়েছে? কগস্টেলের র্যালফ আর নিউব্রিজের উইলিয়াম নামের দুজন লেখক সবুজ রঙা শিশুদের কথা লিখেছেন। যাদের গায়ের রং ছিল সবুজ। অনেকটা মার্ভেলের হাল্কের মতো। কয়েক যুগ ধরেই বহু আলোচনা আর গবেষণা হয়েছে এই সবুজ শিশুদের অস্তিত্ব এবং জীবন নিয়ে।এসব লেখালেখি থেকে দেখা যায় দ্বাদশ শতকের দিকে ইংল্যান্ডের দক্ষিণাঞ্চলে উলপিট নামের এক গ্রামে হাজির হয় দুই সবুজ রঙা শিশু। এরা ছিল ভাই বোন। ছোট্ট এই ভাইবোনকে খুবই ভীতসন্ত্রস্ত দেখাচ্ছিল, কিন্তু তাদের দেখে উল্টো ভয় পেয়ে যায় গ্রামবাসী। কারণ, এই দুই শিশুরই গায়ের রং ছিল সবুজ।
মানব ইতিহাসে সবুজ রঙের রহস্যময় শিশুর কাহিনি, Stay Curioussis
ঘটনাটি যে সময়কার তখন ইংল্যান্ডের রাজা ছিলেন স্টিফেন (১১৩৫-১১৫৪)। দ্বাদশ শতাব্দীর দিকে সাফোকের উলপিট নামের একটি গ্রামের লোকজনের মধ্যে হঠাৎ করেই দেখা যায় দারুণ চাঞ্চল্য। হবেই বা না কেন? চোখের সামনে জ্বলজ্যান্ত দুটি মানব শিশুর গায়ের রঙ যদি সবুজ হয়, তবে সবার পিলে চমকে যাবে বৈকি!
তখন ছিল ধান চাষের সময়। মাঠে কাজ করতে থাকা কৃষকদের সামনে দিয়ে জঙ্গলের পথ ধরে গ্রামের দিকে হেঁটে আসে দুটি ছোট ছেলে-মেয়ে। সাধারণত সবাই জানতো ঐ জঙ্গলে নেকড়ে ছাড়া আর কিছু থাকে না। সেই ঘন জঙ্গল থেকে যখন দুটি মানব শিশু বের হয়ে আসে, তখন স্বভাবতই তাদের নিয়ে সবার উৎসাহ একটু বেশিই ছিল। তার উপর তাদের সবুজ গায়ের রঙ এবং উদ্ভট পোশাক দেখে বেশ ভালোই অবাক হয় গ্রামবাসী। কথা বলতে গিয়ে ঘটে আরেক মুসিবত! এমন এক ভাষায় কথা বলছিল বাচ্চা দুটো যে তার একটি অক্ষরও বুঝবে এমন সাধ্য কার আছে! কোত্থেকেই বা তারা আসলো আর যাবেই বা কোথায়- কিছুই জানা সম্ভব হচ্ছিল না গ্রামবাসীর পক্ষে।শিশু দুটিকে সাথে সাথেই নিয়ে যাওয়া হয় স্থানীয় জমিদার স্যার রিচার্ড ডি কেনের কাছে। তবে সেখানে গিয়ে বেশ কিছুদিন কিছু খেতে অস্বীকৃতি জানায় বাচ্চা দুটো। পরবর্তীতে মটরশুঁটি আর কাঁচা শিম এনে দেয়া হলে বেশ আগ্রহ নিয়েই খায় তারা। মজার বিষয় হলো সাধারণ মানুষের সাথে মিশে, তাদের সাথে চলতে চলতে নিজেদের গায়ের সবুজ বর্ণের পল্লব আস্তে আস্তে হারাতে থাকে দুই ভাই-বোন। তবে পরিবর্তিত এই পরিবেশে অভ্যস্ত হতে পারে না ছেলেটি। ধীরে ধীরে যতই সময় এগিয়ে যেতে থাকে ততই যেন বিষণ্ণতা ঘিরে ধরে বাচ্চাটিকে। দুজনের মধ্যে সে-ই ছিল ছোট। ছেলেটির এই মানসিক বিষণ্ণতা থেকে জন্ম নেয় বিভিন্ন অসুখ এবং খুব দ্রুতই মৃত্যুর মুখে পর্যবসিত হয় বাচ্চাটি।
মানব ইতিহাসে সবুজ রঙের রহস্যময় শিশুর কাহিনি, Stay Curioussis
অপরদিকে মেয়েটি নতুন জীবনের সাথে খাপ খাইয়ে নিতে শুরু করে এবং অচিরেই খ্রিস্টধর্মে দীক্ষিত হয়। গ্রামে বসবাসরত একটি পরিবার তার দায়িত্ব নেয় এবং তাকে স্কুলে ভর্তি করিয়ে দেয়। ইংরেজি ভাষায় কথা বলতে শেখার পর তাকে তার অতীত সম্পর্কে জিজ্ঞেস করা হয়। সে অবশ্য নিজের সম্পর্কে খুব সামান্যই বলতে পেরেছিল। মেয়েটির সম্পর্কে একটি বইয়ে উল্লেখ করা হয়েছে, “Rather loose and wanton in her conduct” অর্থাৎ পরিবেশের সাথে কোনোমতে খাপ খাইয়ে নিলেও তার আচরণে অমনোযোগিতা ও উদাসীনতা বেশ ভালোভাবেই লক্ষ্য করা যায়।মেয়েটির কথা থেকে যা যা জানা যায় তা অনেকটা এরকম-
 
শিশু দুটি ভাই-বোন ছিল।
তারা এসেছিল ‘সেন্টমার্টিন’ থেকে।
সেই জায়গাটি সব সময় কুয়াশাচ্ছন্ন থাকতো।
সেন্টমার্টিনের সব অধিবাসীর গায়ের রঙ সবুজ ছিল।
মানব ইতিহাসে সবুজ রঙের রহস্যময় শিশুর কাহিনি, Stay Curioussis
মতান্তরে জানা যায়, মেয়েটি এমন একটি গ্রামের কথা জানায় যেখানে সর্বদা চোখ ধাঁধানো আলো থাকত। গ্রামটির পাশ দিয়ে বয়ে চলা এক নদীর কথাও সে মনে করতে পেরেছিলো।মেয়েটি গ্রামবাসীকে জানায়, তারা দুই ভাই-বোন একদিন তাদের বাবার গরু খুঁজতে ফসলের ক্ষেতের মধ্যে দিয়ে হাঁটছিলো। হঠাৎ করে পাশের গুহা থেকে এক অদ্ভুত ঘণ্টার শব্দ শুনতে পায় তারা। খুব জোরে জোরে ঘণ্টার শব্দ হওয়ায় চমকে যেয়ে শব্দের উৎস খুঁজতে থাকে তারা। গুহার মধ্যে ঢুকে হারিয়ে যায় দুই ভাই-বোন। দীর্ঘক্ষণ ধরে ঘুরতে ঘুরতে এক সময় গুহার অপর প্রান্তে এসে পৌছায় তারা। প্রখর সূর্যের আলোতে চোখ ধাঁধিয়ে যায় দুজনের।হতবুদ্ধি অবস্থায় বেশ অনেকক্ষণ গুহার মুখে শুয়ে থাকে বাচ্চা দুটো। আস্তে আস্তে কৃষকদের কাজ করার শব্দ কানে আসলে সেদিকে হাঁটতে শুরু করে তারা। সব কথা শুনে স্তব্ধ হয়ে যায় গ্রামের লোকজন। কোন সে গ্রাম যেখানে সবুজ গাত্রবর্ণের অধিবাসীরা বাস করে তা খুঁজতে বের হয়ে যায় অভিযাত্রীর দল। কিন্তু মেয়েটির নির্দেশনা মোতাবেক গিয়ে নদী ছাড়া আর কিছুই খুঁজে পায় না তারা। বড় হয়ে মেয়েটি নর্টফোক রাজ্যের কিং’স লিনের এক যুবককে বিয়ে করে যিনি ছিলেন রাজা দ্বিতীয় হেনরির মুখপাত্র। বলা হয়, পরবর্তী জীবনে মেয়েটি ‘আগনেস বাড়ৈ’ নাম ধারণ করে।
মানব ইতিহাসে সবুজ রঙের রহস্যময় শিশুর কাহিনি, Stay Curioussis
অস্বাভাবিক কোনো ঘটনা দেখলে তা নিয়ে লোকমুখে গল্পের ডালপালা ছড়াবে এটা যেন চিরন্তন সত্যে পরিণত হয়েছে। এই শিশুকে নিয়েও প্রচলিত আছে বেশ কিছু মুখরোচক কাহিনী। কেউ কেউ বলেন বাচ্চা দুটো ছিল নরফোকের এক জমিদার বা আর্লের অভিভাবকত্বে। তাদের সম্পত্তি হাতিয়ে নিতে শিশুদের শরীরে আর্সেনিক প্রয়োগ করে আর্ল। বিষের প্রভাবে দুই অনাথ শিশুর গায়ের রং হয়ে যায় সবুজ। কথাবার্তাও হয়ে যায় অসংলগ্ন। পরবর্তীতে সেখান থেকে পালিয়ে উলপিটে চলে আসে শিশু দুটি। কারো কারো মতে, বাচ্চা দুটি অ্যানিমিয়া বা রক্তাল্পতায় ভুগছিল। তৎকালীন সময়ে এই অসুখটিকে বলা হত ‘গ্রীন সিকনেস’। এই রোগের সাথে স্বল্প পরিচিত লোকজন সাদা, কালো আর তামাটে ছাড়া একেবারেই ভিন্ন গায়ের রঙের দুটি শিশুকে দেখে হইচই ফেলে দেয় সর্বত্র। এমনকি তাদের ভিনগ্রহের বাসিন্দা বলতেও ছাড়েননি কেউ কেউ!রূপকথার গল্পকে হার মানিয়ে দেয়ার মতো বাস্তব এই ঘটনাটি নিয়ে ঐতিহাসিকরা বিভিন্ন সময় বেশ গুরুত্বসহকারে নানা ধরনের ব্যাখ্যা দেয়ার চেষ্টা করেছেন।
মানব ইতিহাসে সবুজ রঙের রহস্যময় শিশুর কাহিনি, Stay Curioussis
ঐতিহাসিক পল হ্যারিসের মতে, ইংল্যান্ডের রাজা দ্বিতীয় হেনরি ও তার বিরোধী শক্তি রবার্ট ডি বিউমন্টের মধ্যে ১১৭৩ সালের দিকে একটি যুদ্ধ সংঘটিত হয়। এ যুদ্ধে প্রাণ হারান অসংখ্য ফ্লেমিশ বা বেলজিয়ামের অধিবাসী। যুদ্ধস্থানটি ছিল সেন্ট অ্যাডমুন্ডসের উত্তরে। সেই যুদ্ধের সময়ে কোনো এক ফ্লেমিশ পরিবার হয়তো সেন্টমার্টিন গ্রাম থেকে পালিয়ে এসে উলপিট গ্রামের একটি নেকড়ের গুহায় আশ্রয় নেয়। দিনের পর দিন অন্ধকার ও খাদ্যাভাবে থাকার কারণে বাবা-মা মারা গেলেও সৌভাগ্যক্রমে বেঁচে যায় শিশু দুটি। ফ্লেমিশ জামা-কাপড়ের সাথে পরিচয় না থাকায় উলপিটবাসীর কাছে তা উদ্ভট মনে হয়েছিল। আর বেলজিয়ামের সাথে কোনো যোগাযোগ না থাকায় ফ্লেমিশ ভাষা তারা বুঝবে বা জানবে এমন কোনো কারণও নেই। এদিকে দীর্ঘদিন যাবত না খেয়ে থাকতে থাকতে বাচ্চা দুটোর শরীরে ক্লোরোসিস তৈরি হয়েছিল বলে তাদের গায়ের রঙ গাছের পাতার মতো সবুজাভ হয়ে যায়। সুষম খাদ্য গ্রহণের ফলে দেহে ক্লোরোফিল নিঃসরণের মাত্রা কমে গিয়ে ক্লোরোসিস তৈরির প্রক্রিয়া বন্ধ হয়ে যায়। ফলে আর দশজন সাধারণ মানুষের মতো বাচ্চা দুটোর গায়ের রঙ স্বাভাবিক হতে শুরু করে। বৈজ্ঞানিক উপায়ে স্বীকৃত এই কারণগুলো শিশু দুটিকে ঘিরে তৈরি হওয়া রহস্যের জাল গুটিয়ে আনে আস্তে আস্তে। বাস্তব জগতেরই এই দুই বাসিন্দা ভয়ে, আতঙ্কে আর অনাহারে নিজেদের শিশুমনে তৈরি করে নেয় রূপকথার রাজ্যের এক কল্পলোক যেখানে সবার গায়ের রঙই সবুজ বলে মনে করে তারা।
মানব ইতিহাসে সবুজ রঙের রহস্যময় শিশুর কাহিনি, Stay Curioussis
উলপিটের এই রহস্যময় শিশু দুটিকে নিয়ে ইংরেজি সাহিত্যে বিস্তর আলোচনা হয়েছে। এই সবুজ শিশুদের নিয়ে যেসব গল্প, কবিতা লেখা হয়েছে তার মধ্যে ইংরেজ কবি হার্বার্ড রিডের ‘ইংলিশ প্রোস স্টাইল’ (১৯৩১) ও ‘দ্য গ্রিন চাইল্ড’ (১৯৩৪) এবং কেভিন ক্রসলির ‘দ্য গ্রিন গার্ল’ (১৯৯৪) অন্যতম। উলপিটের এই সবুজ শিশুদের নিয়ে হাজারো মুখরোচক কাহিনী প্রচলিত আছে। অদ্ভুতুড়ে এই জগতে আসলে কখন যে কোন কারণে কী ঘটে তার মীমাংসা করার মতো ক্ষমতা কি প্রকৃতি আমাদের আজও দিয়েছে? সেই প্রশ্নের উত্তর না মিললেও উলপিটে গেলে আজও দেখা মিলবে সবুজ দুই ভাইবোনের। উলপিটের মানুষ তাদের ভোলেনি। পার্ক এবং স্থানীয় গির্জায় গেলে দেখা পাওয়া যায় রহস্যময় সেই দুই শিশুর মূর্তির। মানুষের মুখে মুখে ফেরা মধ্যযুগীয় লোকগাথা কিংবা বাস্তবতার মূর্তিমান প্রতীক হয়ে দাঁড়িয়ে রয়েছে ভাস্কর্যগুলো।(লেখা তথ্য সূত্র থেকে নেওয়া)
মানব ইতিহাসে সবুজ রঙের রহস্যময় শিশুর কাহিনি, Stay Curioussis
 
তথ্য সুত্রঃ wikipedia/wiki/Green_children_of_Woolpit
historic-uk/CultureUK/The-Green-Children-of-Woolpit/
ancient-origins/unexplained-phenomena/green-children-woolpit-12th-century-legend-visitors-another-world
roar.media/bangla/main/history/mystery-of-the-green-children-of-woolpit/
thexplorateur/2019/08/story-of-green-child-of-woolpit
ntvbd./kidsjugantor/old/oneday-everyday/2015/01/31/
 
লেখকঃ Partha Bhowmick