রাজাদের কাহিনী “শাহনামা”, Stay Curioussis
শাহনামা মহাকাব্য প্রাচীন পারস্য সভ্যতার কিংবদন্তী এবং ইতিহাসের মৌলিক সাহিত্য। যার কাহিনীগুলো যুগ যুগ ধরে মানুষের মুখে চর্চিত হয়েছে। ষাট হাজার শ্লোক বিশিষ্ট এই শাহনামা ইরানের জাতীয় মহাকাব্য রচনা করেন মহাকবি ফেরদৌসী। তিনি ৯৪০ সালে খোরাসানে জন্ম গ্রহন করে এবং ১০১৯ সালে মৃত্যু বরণ করেন । ফেরদৌসী ৩০ বছর (৯৭৭-১০১০) ধরে এই মহাকাব্য রচনা করেন গজনির শাসক সুলতান মাহমুদের শাসনকালে ও তার পৃষ্ঠপোষকতায়, যা ইরানের সাহিত্য ও সংস্কৃতিকে সবচেয়ে বেশি সমৃদ্ধ করেছে। এতে সাসানীয় আমল থেকে দ্বিতীয় খসরু (৫৯০-৬২৮) পর্যন্ত বিভিন্ন বীরদের কাহিনী লেখা হয়েছে। যেমন- ইরাজের পুত্র মনুচেহের বীরের কথা, পুত্র সোহরাবের সাথে রুস্তমের যুদ্ধ ও সোহরাবের দুঃখজনক মৃত্যু, দারিউসের রাজত্বকাল, গ্রীক বীর সিকান্দার বা আলেকজান্ডারের পারস্য অভিযান ইত্যাদি সব থেকে বেশি জনপ্রিয়।
এছাড়া, কায় খসরুর পর লোহরাস্প সিংহাসনে বসেন এবং তার পুত্র গোশতাস্প বিয়ে করেন রোমের সিজারের মেয়েকে। যা ছিল বীর আলেকজান্ডারের পারস্য হামলার মূল কারণ। তার আমলেই পুত্র এসফানদিয়ার জরাথুস্ত্র নামে নতুন ধর্মমত প্রচার করেন। রুস্তম এসফানদিয়ারকে হত্যা করেন। তারপর দারিউস ক্ষমতায় আসেন। দারিউসের পরে ইসকান্দারের ও আরদাশিরের গল্প বলা হয়েছে। এভাবে শাহনামাতে শাপুর, বাহরাম, খসরু এবং কোবাদের মতো ৫০ জন শাসকদের উত্থান-পতন ও ক্ষমতার সংগ্রাম-লড়াই তুলে ধরা হয়েছে। তেমনি একটি কাহিনি সংক্ষেপে এখানে তুলে ধরা হলো।
জাবুলিস্তান নামের দেশের রাজা রুস্তম শিকার করতে গিয়েছিলেন প্রিয় ঘোড়া রক্ষকে নিয়ে। সারাদিন শিকার করে ক্লান্ত রুস্তম ঘুমিয়ে পড়লেন এক গাছের নীচে। সেসময় ঘোড়াটি ঘাস খাচ্ছিল আর সমাঙ্গন রাজ্যের কিছু সেনা সেখান দিয়ে যাওয়ার সময় রক্ষকে দেখে বন্দী করল। রুস্তম ঘুম থেকে উঠে দেখেন রক্ষ নেই। পরে সমাঙ্গন রাজপ্রাসাদে গিয়ে রক্ষকে ফেরত চাইলে, রুস্তমকে রাজকীয় আতিথ্য গ্রহন করার অনুরোধ করলেন রাজা। রুস্তম রাজী হয়ে গেলেন। সেখানে রাজকন্যা তহমিনাকে এক নজর দেখামাত্রই খুব পছন্দ হয়ে গেলো রুস্তমের। পরদিন সকালে তিনি রাজার কাছে বিবাহের প্রস্তাব দিলে রাজা খুব খুশি হন এবং তাদের বিয়ে দেন। বেশ কিছু দিন খুব আনন্দে কাটালেন রুস্তম। কিন্তু রুস্তম তার রাজ্যে ফিরে আসলেন স্ত্রীকে রেখেই। তাহমিনা সন্তান সম্ভবা হলেন। তাদের একটি ফুটফুটে ছেলে হয়, যার নাম রাখা হলো সোহরাব। এই ছেলেও বাবার মত শক্তিশালী সুপুরুষ হয়। কিন্তু সোহরাব তার বাবা রুস্তমকে কোনদিন দেখেনি। এদিকে ইরানের সাথে তুরানের যুদ্ধ শুরু হলে সোহরাব ও রুস্তমের বাহিনী মুখোমুখি হয়। একসময় বাবা ও ছেলের মধ্যেও সংঘর্ষ বাঁধে। সোহরাবের মনে এক ক্ষীণ আশা ছিল যে তাঁর পিতা রুস্তমের সাথে তাঁর নিশ্চয়ই দেখা হবে। বাবা রুস্তমের সম্পর্কে কোনো খবর জোগাড় করতে না পেরে সোহরাব অত্যন্ত দুঃখিত হলেন। দুইজন মহাবীরই সামনাসামনি যুদ্ধ শুরু করলেন, প্রথমে বর্শা এবং তলোয়ার নিয়ে তারপরে মুগুর আর তীরধনুক নিয়ে। এদিকে পুত্রের মনে সন্দেহ হয় ইনিই তাঁর বাবা রুস্তম, নন তো? রুস্তম যুদ্ধ করতে লাগলেন এবং কিছু পরে জয়ী হয়ে সোহরাবের বুকে চেপে বসলেন। আর সময় নষ্ট না করে তিনি এক তীক্ষ্ণ ছুরি সোহরাবের বুকে গেঁথে দিলেন। সোহরাব আহত হওয়ার থেকেও বেশী আশ্চর্য হলেন। তিনি বললেন, তাঁকে মারা যেতে হবে বাবার মুখ না দেখেই। এই কথা শুনে রুস্তম স্তম্ভিত হয়ে গেলেন। সোহরাব তাঁর বর্ম ছিঁড়ে ফেলে বাহুর উপরের সেই রত্নটি দেখালেন। এই সেই রত্ন যা রুস্তম তাঁর স্ত্রী তহমিনাকে দিয়েছিলেন অনাগত সন্তানকে দেওয়ার জন্য। রত্নটি দেখার পর রুস্তম তাঁর ছেলের মাথা কোলে নিয়ে দুঃখে চিৎকার করে কাঁদতে লাগলেন। তিনি যখন অনুভব করলেন তিনি নিজের হাতে তাঁর ছেলেকে হত্যা করেছেন তখন তাঁর অনুতাপের সীমা রইলো না। সোহরাব শেষ নিঃশ্বাসগুলি গুনছেন। মৃত্যুর সময়েও তিনি খুশি, কারণ অবশেষে তাঁর বাবার সাথে তাঁর সাক্ষাত হয়েছে। তিনি রুস্তমকে নিজের শেষ ইচ্ছে জানালেন, তাঁর মৃত্যুর খবর যেন তিনিই তার মা তাহমিনাকে দেন। সোহরাব মারা গেল। রুস্তম তাঁর সন্তানের শেষ ইচ্ছে পূর্ণ করতে ইরানের শিবিরের দিকে রওয়ানা দিলেন। ইরানীয় শিবির এই ঘটনা শুনে স্তব্ধ হয়ে গেল।

বিশ্ববিখ্যাত মহাকবি ফেরদৌসীর অমর মহাকাব্য শাহনামা মধ্যযুগ থেকে আজ পর্যন্ত হাজার বছর ধরে সমগ্র মুসলিম বিশ্বে অত্যন্ত সমাদৃত ও জনপ্রিয় মহাকাব্য। অমুসলিম বিশ্বেও এর জনপ্রিয়তা রয়েছে। শুধু গল্পে থেমে থাকেনি, এটির সুন্দর চিত্রসম্বলিত পান্ডুলিপিও তৈরি হয়েছে যুগে যুগে। যেসব আজ বিশ্বের বিখ্যাত জাদুঘর, গ্রন্থাগার ও চিত্রশালাগুলিতে প্রদর্শিত হচ্ছে। যেমন – ব্রিাটশ মিউজিয়াম, ব্রিটিশ লাইব্রেরি, চেস্টার বীট লাইব্রেরি, স্টেট মিউজিয়াম বার্লিন, তুরস্কের তোপকাপি সেরাই জাদুঘর আর আমেরিকার মেট্রোপলিটন মিউজিয়াম ইত্যাদিতে।
ভারত উপমহাদেশেও সুলতানি আমলে ও মোঘল দরবারে অনেক চিত্রসম্বলিত শাহনামার পাণ্ডুলিপি অংকিত হয়েছিল। বাংলাতেও তার উদাহরণ আমরা দেখতে পাই। পৃথিবীর বিভিন্ন ভাষার মত বাংলা ভাষায় শাহনামার অনুবাদ হয়েছে। শুধু তাই নয়, এর চিত্রায়নও হয়েছে এই বাংলায়। জানা যায় যে, বাংলাদেশের বিখ্যাত জাতীয় জাদুঘরে শাহনামার চিত্রিত কিছু পান্ডুলিপি বই সংরক্ষিত রয়েছে। যেগুলো আমাদের বাংলাদেশের জাতীয় সম্পদ। হয়তো আরো কিছু এরকম ঐতিহ্য আামাদের অন্যান্য জাদুঘর ও সংগ্রহশালাতে রয়েছে অবহেলায়–অযত্নে। এবিষয়ে আমাদের আরো অনুসন্ধান করা প্রয়োজন। তাই শাহনামা আমাদের জ্ঞান ও ঐতিহ্যের ভান্ডার। ইরান তার চুরি হয়ে যাওয়া শাহানামার একশো’র বেশি নয়নাভিরাম চিত্রিত বইয়ের পাতা তাদের গুলিস্তান জাদুঘরে ফেরত আনতে সক্ষম হয়েছে। আমাদেরকেও আমাদের হারিয়ে যাওয়া বিভিন্ন প্রত্নবস্তু ফিরিয়ে আনার ব্যবস্থা করতে হবে।

উর্বশি-পুরুরবাঃ স্বর্গের অপ্সরী ও মর্ত্যের মানুষের ভালোবাসার গল্প

ভারতীয় পুরাণের এক অমূল্য নিদর্শন হচ্ছে মহাভারত। প্রাচীন ও সুবিশাল এই মহাকাব্যটিকে গন্য করা হয় পৃথিবীর প্রাচীন চার বিখ্যাত মহাকাব্যের একটি হিসেবে। এই বিশাল  কাহিনি-কাব্যের পাতায় পাতায় আছে রাজনীতি, কূটনীতি, দর্শন, যুদ্ধ,ভালোবাসা, রাজাদের বীরত্বগাঁথা ইত্যাদি। বলা হয় যা...

নীল পূজার লোককাহিনী: নীলের ঘরে দিলাম বাতি

'নীলের ঘরে দিলাম বাতি      সাক্ষী থেকো মা ভগবতী।' বাঙালির বারো মাসে তেরো পার্বণ। বছরজুড়ে উৎসবের শেষ নেই। আর গ্রামবাংলার লৌকিক উৎসব আর পার্বণ তো অগণ্য। বাঙালি হিন্দুদের তেমনি এক পার্বণ হলো নীলের পূজা। কালের চক্রে শহুরে হিন্দুসমাজে তেমন একটা প্রচলন আজকাল না থাকলেও...

কর্ণ, ভীষ্ম সংবাদ

রাত্রি দ্বিপ্রহর। চারিদিক নিস্তব্ধ, ভয়ংকর নিরবতায় আচ্ছন্ন। দূরথেকে কয়েকটা কুকুরের ডাক ভেসে আসছে। কুরুক্ষেত্রের বিশাল প্রান্তর এখন যেনো এক বিরান মরুভূমিতে পরিনত হয়েছে। হঠাৎ কৌরব শিবিরের একটি তাঁবু থেকে দীর্ঘকায়, সুঠামদেহী একটি ছায়ামূর্তি বের হয়ে এলো। পাহারারত প্রহরীরা...

ভয়ংকর শরভ অবতার

ভারতীয় পুরাণে উল্লিখিত দেবতা বিষ্ণুর দশ অবতারের কথা সর্বজনবিদিত। ধরায় যখন পাপাচার অনেক বেড়ে যায় তখন শিষ্ঠের পালন ও দুষ্টের দমনে  বিষ্ণু অবতার রূপ ধারন করেন।  কিন্তু পুরাণের আরেক প্রভাবশালী দেবতা মহাদেব শিবেরও বেশ কিছু অবতারের ব্যাপারে জানা যায়, তার মধ্যে উল্লেখযোগ্য...

সত্যবতী ও বেদব্যাস

কৃষ্ণদৈপায়ন ব্যাসের রচিত মহাভারত এক অত্যাশ্চর্য এবং প্রাচীন ভারতীয় সাহিত্যের সর্ব বৃহৎ গ্রন্থ। শাস্ত্র বিশেষজ্ঞ বলে থাকেন কুরুক্ষেত্র যুদ্ধের কালসীমা খ্রী. পূ. ৩০০০ অব্দের আশপাশে (যদিও মতান্তর আছে)। তার কিছুকাল পর মহাভারত রচিত হয়। মহাভারত গল্প যেকোনো আধুনিক গল্পের...

মেহেদী হাসান খান

মেহেদী হাসান খান ১৮ বছর বয়সের মেহেদী হাসান খান ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজে ডাক্তারি পড়তে ভর্তি হলেন,কিন্তু পড়াশোনায় তার মন নাই! কিন্তু কেন? তিনি নাওয়া- খাওয়া, পড়াশোনা বাদ দিয়ে একটা ছোট্ট কম্পিউটার সম্বল করে বাংলা ভাষায় লেখার জন্য লড়াই শুরু করলেন। একটাই জেদ, বাংলা...

ঢাকার হারিয়ে যাওয়া সংগ্রহশালা- বলধা জাদুঘর

১৯২৫ সালের ঢাকা; ফুলবাড়িয়া রেলস্টেশন থেকে বেরিয়ে রেললাইন ধরে নারায়ণগঞ্জের দিকে কিছুদূর এগুলে উয়ারি। উয়ারির শেষ সীমানায় এক সরু রাস্তা চলে দিয়েছে নারিন্দার দিকে। সরু সেই রাস্তার একপাশে বহু পুরাতন খ্রিস্টান কবরখানা আর তার বিপরীতে উঁচু পাচিলঘেরা কম্পাউন্ডের ভেতর দোতলা...

সুন্দরবন ধ্বংসের ইতিবৃত্ত

ব্রাজিলের চিরসবুজ বিস্তৃত এমাজন (Amazon Rainforest) গহীন বনাঞ্চলকে বলা হয় বিশ্বের ফুসফুস, তেমনি সুন্দরবনও বাংলাদেশের শ্বাস-প্রশ্বাসের এক অঙ্গ। এই ঘন বনাঞ্চল বাংলাদেশের প্রাকৃতিক দুর্যোগেরও এক প্রতিরোধ। সুন্দরবনকে ঘিরে আশেপাশের জনপদে ছড়িয়ে আছে অনেক পৌরাণিক কাহিনী। এমনি...

ঢাকার এক বিস্মৃত চিকিৎসক

দিনটি ছিল ১৫ই নভেম্বর ১৮৬৪ সাল, মঙ্গলবার। সন্ধ্যা নামতে আর বেশি দেরি নেই। নারিন্দার খ্রিস্টান কবরস্থানের দীর্ঘ ঘাসের ঝোপে অবশ্য তখনই অন্ধকার নেমে এসেছে। সন্ধ্যা হলে এই এলাকায় সহজে কেউ পা বাড়ায় না। কিন্তু সেদিন পুরো এলাকা লোকে লোকারণ্য- আছে ইংরেজ, আরমেনিয়, দেশী সব...

ঢাকার ঐতিহাসিক তারা মসজিদ

পূর্বকথাঃ উনিশ শতকের মাঝামাঝি সময়ের কথা। আরমানিটোলার মহল্লা আলে আবু সাঈদে তখন এক প্রভাবশালী জমিদারের বাস, নাম- মীর্জা গোলাম পীর। দাদা মীর আবু সাঈদ  ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানির রমরমা যুগে তুরস্ক থেকে এসে ঢাকায় থিতু হয়েছিলেন। মীর্জা গোলাম পীরের আরেক নাম মীর্জা আহমেদ জান। তবে...