নায়করাজ রাজ্জাক: অভিনয়ে নিজেই নিজের তুলনা, Stay Curioussis

চিত্র নায়ক রাজ্জাক আমাদের রূপালী পর্দার নায়করাজ। প্রথম স্থির চিত্রটি ১৯৭০ সালে মুক্তিপ্রাপ্ত “প্রতিশোধ” ছবি থেকে নেয়া। দ্বিতীয় চিত্রটি নেয়া হয়েছে ১৯৭৬ সালের “কি যে করি” ছায়াছবি থেকে। তৃতীয় চিত্রটি “বেঈমান” (১৯৭৪) চলচ্চিত্র থেকে নেয়া। এই ছবিতে দেখা যাচ্ছে তাঁর ইম্পালা গাড়ীটি, যা’ এই ছায়াছবিতে ব্যবহৃত হয়েছিল। স্যুট সহ চতুর্থ চিত্রটি কোনও চলচ্চিত্রের নয়, তিঁনি সত্তর শতকে একটি সামাজিক অনুষ্ঠানে অংশ নিচ্ছিলেন। ছবিটিই বলে দিচ্ছে, রাজ্জাক আসলে কত স্মার্ট, স্টাইলিশ এবং সুদর্শন ছিলেন!

নায়করাজ রাজ্জাক ছিলেন বহুমুখী অভিনেতা। ১৯৭০ দশকে মুক্তিপ্রাপ্ত বাছাইকৃত বারোটি ছায়াছবিতে তাঁর অভিনীত বিভিন্ন চরিত্রগুলোকে নিয়ে সাজানো হয়েছে নায়করাজের উপর এই আজকের এই সংক্ষিপ্ত “সিটি ট্যুর”!
১৯৭০ দশকের গোড়ার দিকে, আমাদের স্বাধীনতার আগে, “প্রতিশোধ” ছবিতে রাজ্জাককে দেখা যায় মাথায় পাগড়ী পরা এক শিখের চরিত্রে। ছবিটি রাজ্জাকের অভিনয় জীবনের প্রথম দিকের। এই ছবিতে রাজ্জাকের শক্তিশালী অভিনয় তখন জানান দিয়েছিলো তাঁর দুর্দান্ত প্রতিভার কথা। পরবর্তীতে, “ওরা এগারো জন” (১৯৭২) ছায়াছবিতে পারভেজ চরিত্রের রূপায়ণ এবং নির্যাতনের দৃশ্যে তাঁর অভিনয় এতটাই বাস্তব ছিল যে দর্শকদের অনেকেই দৃশ্যতঃ বিচলিত বোধ করতেন সিনেমা হলে।
“অবুঝ মন” (১৯৭২) ছবিতে রাজ্জাকের ডাঃ মাসুম চরিত্রের অভিনয় ছিল অসামান্য। সিনেমার প্রথমার্ধে তাঁর কমেডী এখনো অবিস্মরণীয় হয়ে আছে অনেকের কাছে। ‘রংবাজ’ (১৯৭৩) ছবিতে রাজা চরিত্রটিতে রাজ্জাকের অভিনয় ছিল অবিশ্বাস্য। একই বছর, রাজ্জাক একটি রিকশা চালকের (হাশেম হিসাবে) চরিত্রে অভিনয় করেছিলেন “অনির্বাণ” (১৯৭৩) ছবিতে। এই ছবিতে দেখা যায় রাজ্জাক একটি পা হারিয়ে ক্র্যাচের উপর ভর করে চলাফেরা করছেন। রাজ্জাকের এমন বাস্তব অভিনয় ছিল অসাধারণ।
“বেঈমান” (১৯৭৪) ছবিতে রাজ্জাক নাসিমের চরিত্রে অভিনয় করেছিলেন। এই ছবিতে তিঁনি অজান্তেই নিজের বাবাকে হত্যা করে ফেলেন। এ হত্যাই রাজ্জাকের জীবনে এনে দেয় চরম হতাশা, তাঁকে হতে হয় অসম্ভব অনুতপ্ত। এই কঠিন মনস্তাত্ত্বিক বিষয়গুলোকে তিঁনি অভিনয়ের মাধ্যমে অসাধারণভাবে ফুটিয়ে তুলেছেন ছবিটিতে। এই ছবিতে রাজ্জাকের মৃত্যুর দৃশ্য ছিলো বাংলা ছায়াছবির জগতের এক টার্নিং পয়েন্ট। সেই সময় রাজ্জাকের এমন বিয়োগান্ত এক চরিত্রের ভূমিকায় অভিনয় ছিল অনেকের কাছে অকল্পনীয়।
এদিকে “বাঁদী থেকে বেগম” (১৯৭৫) ছবিতে নবাব আলী নওশেরের ভূমিকায় নায়করাজের অভিনয় ছিল দেখার মতো। এই ছায়াছবির আবহ, গল্পের আঙ্গিক, এবং চিত্রনাট্য ছিল বেশ ব্যতিক্রমধর্মী। “কি যে করি” (১৯৭৬) ছবিতে রাজ্জাকের ছাপা লুঙ্গি আর রাজেশ খান্না পাঞ্জাবী পরে বাদশা চরিত্রের অভিনয় ছিল অনেকদিন মনে রাখার মতো। এই ছায়াছবিতে তাঁর কৌতুক ভুলতে পারবে কে? এই ছবিতে অসাধারণ অভিনয়ের জন্য প্রথমবারের মতো জাতীয় পুরস্কার পেয়েছিলেন রাজ্জাক। এই ছায়াছবিটির কাহিনী বিন্যাস ছিল অত্যন্ত ব্যতিক্রমী।
১৯৭৭ সালে নায়করাজ “অতিথি” ছবিতে হিরু আহমেদের চরিত্রে অভিনয় করেন। হিরু ছিল একজন ট্যাক্সি ড্রাইভার। এই ছবিতে তাঁর অভিনয় হিন্দি সংস্করণ “দুশমন”এ একই চরিত্রে অভিনয় করা রাজেশ খান্নার চেয়েও অনেক বাস্তব মনে হয়েছে অনেকের কাছে। “অশিক্ষিত” (১৯৭৮) ছবিতে রাজ্জাকের নাইটগার্ড রহমতের ভূমিকায় অভিনয় তাঁকে এনে দেয় আরও একটি জাতীয় পুরষ্কার। একই বছরে “আসামী” ছবিতে সেলিমের ভূমিকায় তাঁর অভিনয় ছিল অনবদ্য।
অবশেষে “ছুটির ঘন্টা” (১৯৭৯-৮০) ছবিতে বিদ্যালয়ের পিয়ন, আব্বাসের ভূমিকায় তাঁর অভিনয় কে ভুলতে পারে সহজে? সে এক অসামান্য অভিনয়! ১৯৬০, ১৯৭০ দশকে এবং তারপরেও অন্যান্য বিভিন্ন চরিত্রে তাঁর অনবদ্য অভিনয় বাংলার মানুষ মনে রাখবে অনেক-অনেক দিন। বাংলাদেশের ছায়াছবির ইতিহাসেও রাজ্জাক নিয়ে রেখেছেন অনেকটুকুই স্থান!
নায়করাজের সাথে দেশী-বিদেশী অন্য কোনো অভিনেতার তুলনা করা আর আপেলের সাথে কমলার তুলনা করা একই কথা। রাজ্জাকের অভিনয়ের একটি নিজস্ব স্বকীয়তা রয়েছে।
তাই, নায়করাজের তুলনা নায়করাজ নিজেই!

অ্যাডলফ হিটলার: বিশ্বযুদ্ধের খলনায়ক

দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ (১৯৩৯-১৯৪৫) মানব সভ্যতার ইতিহাসে সবচাইতে ভয়াবহ, রক্তক্ষয়ী যুদ্ধ। দীর্ঘ ছয় বছর ধরে জলে, স্থলে ও অন্তরীক্ষে হয়েছে তুমুল লড়াই। ভয়াবহ ও সর্বগ্রাসী এই যুদ্ধে পরিবর্তন হয়েছিলো মানুষের সমাজ কাঠামো, বদলে গিয়েছিলো  বিশ্বরাজনীতি। এই মহাসমরকে...

যে ছবি ২০বছরের যুদ্ধ কেও থামিয়ে দিয়েছিল!!

শুরুটা করি একটু অন্যরকম ভাবে..... "বিশ্বে জেগেছে একটি নাম... ভিয়েতনাম ভিয়েতনাম ভিয়েতনাম.." ১৯৭২ সালে এই ছবি তোলা হয়েছিল দক্ষিণ ভিয়েতনামের একটি গ্রামে। পিছনে কুখ্যাত নাপাম বোমার ধোঁয়া। যন্ত্রণায় চিৎকার করতে করতে নগ্ন হয়ে দৌড়াচ্ছে নয় বছরের এক বালিকা। অ্যাসোসিয়েটেড...

অ্যাডমিরাল ইয়ামামোতো- দ্বিতীয় মহাযুদ্ধে জাপানী নৌবাহিনীর নায়ক

৭ ডিসেম্বর, ১৯৪১ সাল। সকাল ৭ টা ৪৮ মিনিট। যুক্তরাষ্ট্রের হাওয়াই টেরিটরির হনলুলুর পার্ল হারবারের নেভাল বেসে নোঙ্গর করে রাখা বিভিন্ন ব্যাটেল শিপ, ডেস্ট্রয়ার,ক্রুজার আর এয়ারক্রাফট ক্যারিয়ারগুলো অন্যান্য ব্যাস্তদিনগুলোর মতোই কর্মচঞ্চল হয়ে ওঠে। নাবিক-সৈনিকদের রেগুলার ড্রিল...

বীরভূমের ৯৯৯ দুয়ার বিশিষ্ট হেতমপুর রাজবাড়ি

• মুর্শিদাবাদের হাজার দুয়ারী (Hazarduari of Murshidabad) কে না চেনেন? কিন্তু ৯৯৯ টি দুয়ার বিশিষ্ট হেতমপুর রাজবাড়ি (Hetampur Rajbari) অনেকেই হয়তো দেখেনি I বর্তমান হেতমপুর রাজবাড়িতে ২ টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান চলে। সরকার যদি ঠিক মতো সংরক্ষণ করত দ্বিতীয় হাজারদুয়ারি...

স্যার সিরিল র‍্যাডক্লিফের ভারত ভাগ

১৯৪৭ সালে রানী ভিক্টোরিয়ার নাতি লর্ড মাউন্টব্যাটেন যখন ভাইসরয় হয়ে ভারতে আসেন, তখন সেখানে ব্রিটিশ সাম্রাজ্যেরের অন্তিম অবস্থা চলছে। সাম্প্রদায়িক দাঙ্গাও শুরু হয়েছে। কংগ্রেস প্রথম থেকেই অখন্ড ভারতের স্বাধীনতার দাবিতে অটল ছিলো। মুসলিম লীগ, ভারতীয় মুসলমানদের আলাদা...

নাইট যোদ্ধাঃ মধ্যযুগের ইউরোপের সাহসী যোদ্ধার দল

মধ্যযুগের ইউরোপে যখন সামন্ত প্রথা কেবলমাত্র বিকশিত হতে শুরু করেছে তখন এ সংস্কৃতির ভেতর দিয়েই গড়ে উঠে  শিভ্যালরী নামের এক অভিজাত প্রথা। এ প্রথার আওতায় সামন্ত প্রভুদের শিষ্টাচার, আচার-আচরণ ও তাদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করার জন্য এক ধরণের প্রতিরক্ষা ব্যবস্থার উদ্বোধন হয়।...

সালেম উইচ ট্রায়ালঃ মধ্যযুগের ইউরোপে ডাইনি নিধনের ইতিহাস

সময় তখন ১৬৯২ সালের মাঝামাঝি। তৎকালীন কলোনিয়াল আমেরিকার ম্যসাচুসেটস প্রদেশের সালেম নামের একটি গ্রামে কিছু ডাইনীর সন্ধান পাওয়া যায়। গ্রামের লোকজন খুব সন্ত্রস্ত হয়ে খেয়াল করল এই ডাইনিগুলো শয়তানের পূজা করার মাধ্যমে নিজেদের এমন অতিমানবীয় ক্ষমতায় নিয়ে গেছে যে তারা যেকোন সময়...

মুঘল আমলে শেষ দিনগুলোয় ঈদ

রমজানের শেষ শুক্রবার অলবিদা, খুবই গুরুত্বপূর্ণ একটা বার। বাদশা [তাঁর কাব্যে লেখক মুন্সি ফৈজুল্লা শেষ দুই সম্রাট দ্বিতীয় আকবর শাহ এবং বাহাদুর শাহ জাফরের সময়ের রাজত্বের কথা বলছেন অর্থাৎ ১৮৫৭-র বিপ্লবের আগের কয়েক বছরের মূহূর্তগুলি] বিশাল মিছিল করে জামা মসজিদে গিয়ে সকলের...

পোপতন্ত্র -মধ্যযুগের ইউরোপে গির্জা সংগঠন ইতিহাস

মধ্যযুগের ইউরোপে গির্জাকে কেন্দ্র করে রাজনৈতিক ও আধ্যাত্মিক এক ব্যবস্থা গড়ে উঠেছিল যার কেন্দ্রবিন্দুতে ছিলেন গির্জার যাজক বা পোপ।  একসময় খ্রিস্টান চার্চগুলো ছিল সাধারণ উপাসনালয়। সহজ সরল ও অনাড়ম্বর ধর্মীয় অনুষ্ঠান পালনই ছিল চার্চগুলোর প্রতিদিনকার কাজ। আর সেই চার্চের...

আকবরের গপ্প (প্রথম পর্ব)

  বিশ্বসাম্রাজ্য ইতিহাসে অন্যতম বর্ণময় শাসক মুঘল সম্রাট জালালুদ্দিন আকবর, তার সময়ে দক্ষিণ এশিয়ার ইতিহাসের মোড় একাহাতে ঘুরিয়ে দিতে পেরেছেন। ৪৫০ বছর আগে আবির্ভূত হয়ে তিনি টলমলে মুঘল সাম্রাজ্যকে স্থিতি দিয়েছেন; মুঘল সম্রাজ্যকে গড়ে তুলেছেন এক্কেবারে মাটিছেনে।...